অপরাজিত:: অলিম্পিয়ান ম্যাসকট-চরিত - রাজীবকুমার সাহা

অলিম্পিয়ান ম্যাসকট-চরিত
রাজীবকুমার সাহা

ম্যাজিক ল্যাম্পের শারদসংখ্যা প্রকাশ পেতে পেতে রিও অলিম্পিকের যৌবন তখন অতিক্রান্ত, প্রৌঢ়ত্বের ভারে অনেকটাই ন্যুব্জ। তাছাড়া সবরকম সংবাদপত্র, বিভিন্ন ম্যাগাজিন আর টিভি চ্যানেলগুলোতে এ নিয়ে লেখালিখি, সাক্ষাৎকার আর টক-শো এত পরিমাণে হয়েছে যে অলিম্পিকের ২০১৬-এর গোটা ইভেন্ট নিয়ে নতুন করে লেখার কিছুই নেই। অথচ ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’-কে নিয়ে কিছু একটা না লিখলেই নয়। তাই কলম কামড়াতে কামড়াতে হঠাৎ অলিম্পিকের ম্যাসকটগুলোর পেছনে লেগে পড়লাম। এখানে ১৯৬৭ সালের গ্রেনোবল অলিম্পিক থেকে শুরু করে হালে সমাপ্ত রিও অলিম্পিক পর্যন্ত বিভিন্ন চরিত্রের ম্যাসকটগুলোর জন্মকথা, কিছু ইতিহাস আর কিছু খুঁটিনাটি পেশ করা হল।
অলিম্পিক ম্যাসকটগুলো সাধারণত একেকটা কল্পিত চরিত্র হিসেবেই তৈরি করা হলেও এতে আয়োজক দেশের বা তার নির্দিষ্ট কোনও অঞ্চলের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ধারক ও বাহকের পরিচায়ক প্রসিদ্ধ কোনও ব্যক্তি বা জীবজন্তুর আদলেই রূপদান করা হয়ে থাকে। লোগোর পাশাপাশি একেকটা ম্যাসকট পুরো অলিম্পিক ইভেন্টগুলো কচিকাঁচাদের আকর্ষণ করতে একটা উপযোগী কৌশল হিসেবে কাজ করে কিন্তু। এই কৌশল বা প্রক্রিয়াটির বয়স কিন্তু কম নয়। সেই ১৯৬৮ সালে ফ্রান্সের গ্রেনোব্‌ল-এ শীতকালীন আসরের সময়ই অলিম্পিক দুনিয়া তার প্রথম ম্যাসকটের মুখ দেখেছিল। তবে ১৯৮০ সালে মস্কোতে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে Misha নামের ম্যাসকটটি সর্বপ্রথম সার্বিক পরিচিতি লাভ করে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে যায়।

নামঃ SCHUSS
সৃষ্টিকর্তাঃ Mme Lafargue
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Grenoble, France
সালঃ ১৯৬৮

১৯৬৮ সালের ফ্রান্স অলিম্পিকের সেই প্রথম ম্যাসকটের নাম ছিল Schussস্কিয়ের ওপর দাঁড়ানো একজন ছোট্ট মানুষের একটা বিমূর্ত ছবি যাতে ব্যবহার করা হয়েছিল ফ্রান্সের জাতীয় পতাকার তিনটি রঙ – নীল-সাদা-লাল।

নামঃ WALDI
সৃষ্টিকর্তাঃ Otl Aicher
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Munich, Germany
সালঃ ১৯৭২



অফিসিয়াল অলিম্পিক ম্যাসকট Waldi নামে প্রথম আত্মপ্রকাশ করে ১৯৭২ সালে মুনিচের গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে। জার্মানির ব্যাভারিয়ার এই জনপ্রিয় শিকারি কুকুরের প্রতিমূর্তিকে অ্যাথলেটদের ধৈর্য, সহ্যশক্তি ও তৎপরতার রূপক হিসেবে তুলে ধরা হয়। অলিম্পিকের পাঁচটি রংয়ের কমপক্ষে তিনটি এই ম্যাসকটের শোভা ছিল।
দ্য অলিম্পিক ম্যারাথন (২০০০) নামক বইয়ের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৭২ সালের অলিম্পিক ম্যারাথনের রুট তার ম্যাসকটের আকার-আকৃতি অনুসারেই তৈরি করা হয়েছিল। প্রতিযোগীদের মুখ থাকবে পশ্চিমদিকে আর তাঁরা ঘড়ির কাঁটার বিপরীতদিকে দৌড়োবেন। আসলে Waldi-এর জন্ম হয়েছিল ১৫ই ডিসেম্বর ১৯৬৯ সালের ১৫ই ডিসেম্বর মুনিচ অলিম্পিক অর্গানাইজিং কমিটির হাতে। কর্মকর্তারা সেদিন ক্রিসমাস পার্টিতে মগ্ন ছিলেন এবং প্রত্যেককে রঙিন চক, কাগজের দিস্তে আর মূর্তি গড়ার জিনিসপত্র হাতে তুলে দিয়ে বলা হয়েছিল আগামী অলিম্পিকের ম্যাসকটের ডিজাইন বানাতে।
Cherie von Birkenhof নামের লম্বা লোমের এক কুকুরের প্রতিমূর্তি এই ম্যাসকটকে গেমস অর্গানাইজিং কমিটির প্রেসিডেন্ট Willi Daume শেষে ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট Félix Lévitan-এর হাতে সমর্পণ করেন ১৯৭০ সালে।
Waldi এতটাই জনপ্রিয় হয়েছিল যে সারা বিশ্বজুড়ে প্রায় দুই মিলিয়ন Waldi সম্পর্কিত জিনিসপত্র যেমন, খেলনা, বোতাম, পোস্টার, স্টিকার, পিন ইত্যাদি বিক্রি হয়েছিল।

নামঃ SCHNEEMANN
সৃষ্টিকর্তাঃ Walter Pötsch
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Innsbruck, Austria
সালঃ ১৯৭৬

জার্মান ভাষায় Schneemann নামের অর্থ তুষারমানব। ১৯৬৪ সালে ইন্সব্রুক-এ আয়োজিত অলিম্পিকের সময় তুষারপাতের অভাব দেশবাসীকে চিন্তায় ফেলে দিয়েছিল। তাই এই অলিম্পিকেও যাতে সেই অভাব পরিলক্ষিত না হয় সেজন্য একরকম মানসপুত্র হিসেবেই তুষারমানবরূপী ম্যাসকটের জন্ম দেওয়া হয়েছিল। আর সকল কর্মকর্তাদের মুখরক্ষা করে সেইসময় প্রচুর বরফও পড়েছিল। তুষারমানবের আদলে তৈরি লাল টুপি পরিহিত Schneemann দারুণ জনপ্রিয় হয়েছিল।

নামঃ AMIK
সৃষ্টিকর্তাঃ Yvon Laroche, Pierre-Yves,
Pelletier, Guy St-Arnaud
এবং George Huel
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Montreal, Canada
সালঃ ১৯৭৬


কানাডার মন্ট্রিলে অনুষ্ঠিত ১৯৭৬ সালের গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের ম্যাসকট ছিল উত্তর আমেরিকার এক বন্যপ্রাণী BeaverAnishinaabe ভাষায় Amik কথার অর্থ হল Beaverকানাডার স্থানীয় বন্যপ্রাণী Beaver-কে কঠোর পরিশ্রমের প্রতীক হিসেবে ধরা হয়।
তিন সৃষ্টিকর্তার হাত ধরে জন্ম নেয় Amik

নামঃ RONI
সৃষ্টিকর্তাঃ Donald Moss
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Lake Placid, New York, U.S.A.
সালঃ ১৯৮০

Lake Placid-এর স্থানীয় ভাষা Iroquoian-এর ‘Racoon’ শব্দ থেকে Roni-এর উৎপত্তি। নির্বাচন করেছিল স্থানীয় স্কুল পড়ুয়ারা। Adirondacks নামক পার্বত্য অঞ্চলে অবস্থিত লেক প্ল্যাসিডের স্থানীয় জন্তু হচ্ছে র‍্যাকুন। তার আদলেই ডিজাইনার ডোনাল্ড মস ১৯৮০ সালের শীতকালীন অলিম্পিকের ম্যাসকট তৈরি করেন। সৃষ্টিকর্তা অলিম্পিক রিংয়ের পাঁচটি রংয়ের সমন্বয় ঘটান এই ম্যাসকটে।
রকি নামের এক জীবন্ত র‍্যাকুনকেই প্রথমে এই আসরের ম্যাসকট হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছিল। কিন্তু অলিম্পিক শুরু হওয়ার আগমুহূর্তে রকির মৃত্যু ঘটলে Roni-কে বেছে নেওয়া হয়।

নামঃ MISHA
সৃষ্টিকর্তাঃ Victor Chizhikov
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Moscow, USSR
সালঃ ১৯৮০

Victor Chizhikov নামের বাচ্চাদের বই-পুস্তকের এক রাশিয়ান অলঙ্করণ শিল্পী এই ম্যাসকটের রূপদান করেন। Misha ছিল প্রথম ক্রীড়াসংক্রান্ত পণ্যদ্রব্য যা বাণিজ্যিকরূপে সবচেয়ে বেশি সফলতা অর্জন করেছিল। শুধু তাই নয়, মিশাকে কেন্দ্র করে অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্ম এবং টেলিভিশন সিরিজও তৈরি করা হয়েছিল। আর ম্যাসকটকে নিয়ে এই প্রবণতা আজও শুধু অলিম্পিকের আসরগুলোতেই নয়, ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ এবং অপরাপর খেলাধুলোর আসরেও বিদ্যমান।
Misha শব্দটি রাশিয়ান নাম মিখাইল এবং মিশকার সংক্ষিপ্ত রূপ। ১৯৭৭ সালে মস্কো অলিম্পিকের আয়োজন কর্তারা ম্যাসকটরূপী ভালুকের ছবি আঁকার এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন। আর এতে Victor Chizhikov-এর আঁকা ম্যাসকটটি বেছে নেওয়া হয় এবং ওই সালের ১৯শে ডিসেম্বর Misha-কে মস্কো অলিম্পিকের অফিসিয়াল ম্যাসকট হিসেবে ঘোষণা করা হয়। আজও Misha-কে অলিম্পিকের অন্যতম সেরা ম্যাসকট হিসেবে মানা হয়।

নামঃ VUčKO
সৃষ্টিকর্তাঃ Jože Trobec
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Sarajevo, Bosnia
and Herzegovina
সালঃ ১৯৮৪

১৯৮৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিকের ম্যাসকট বিশ্ববাসীর সামনে এসে দাঁড়াল এক নেকড়ের বেশে। Dinaric Alps-এর বনাঞ্চলে এই নেকড়ের হামেশাই দেখা মেলে। ৮৩৬ জন প্রতিযোগীর মধ্যে Jože Trobec-এর শিল্পকে মনোনীত করা হয়। বিভিন্ন সংবাদপত্র এবং ম্যাগাজিনের ভোটে মোট ছয়টি দফায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীকালে বিখ্যাত কার্টুনিস্ট Nedeljko Dragic য়ুগোস্লাভিয়ার বিভিন্ন দৈনিক এবং সাপ্তাহিক সংবাদপত্রে Vucko-কে তার নায়ক হিসেবে কার্টুন পরিবেশন করেন।

নামঃ SAM
সৃষ্টিকর্তাঃ Robert Moore
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Los Angeles, U.S.A.
সালঃ ১৯৮৪

সেবছর আমেরিকার জাতীয় পাখি ন্যাড়া ঈগল ছিল অলিম্পিকের ম্যাসকট। নাম দেওয়া হয়েছিল Sam সৃষ্টিকর্তা রবার্ট মূর ছিলেন ওয়াল্ট ডিজনি কোম্পানির একজন বিশিষ্ট কার্টুনিস্ট। ডিজনির আঙ্কল স্যামের পরিপূরকরূপে এই ঈগল স্যামের জনপ্রিয়তাও ছিল তুঙ্গে। ১৯৮৩ সালে জাপানে ঈগল স্যাম নামে একটা অ্যানিমেটেড সিরিজও তখন সাফল্যের সঙ্গে সম্প্রচারিত হচ্ছিল।

নামঃ HIDY and HOWDY
সৃষ্টিকর্তাঃ Sheila Scott
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Calgary, Canada
সালঃ ১৯৮৮

এই Hidy এবং Howdy মেরু-ভল্লুকদ্বয়কে প্রায় ৭০০০ হাজার প্রতিযোগীকে পরাজিত করে শীলা স্কটের হাতে জন্ম নিতে হয়েছিল। হাউডি এবং তার বোন হাইডি ছিল অলিম্পিকের প্রথম দ্বৈত ম্যাসকট। পরবর্তী সময়ে ক্যালগ্যারির বিশপ ক্যারল হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের দ্বারা এই হাইডি ও হাউডি চরিত্রদুটি মঞ্চস্থ করা হয়। শুধু তাই নয়, ১৯৯৩ সালে ক্যালগ্যারি অলিম্পিকের ওপর ভিত্তি করে তৈরি ‘কুল রানিংস’ সিনেমায় ক্যামিও রোল হিসেবে এই দুই ভাইবোনের পুনরায় আত্মপ্রকাশ ঘটে।
একসময় ‘ওয়েলকাম টু ক্যালগ্যারি’ সাইন হিসেবে ক্যালগ্যারি শহরে অতিথি আপ্যায়নে ব্যস্ত থাকত তারা। পরে ২০০৮ সালে স্থানীয় সরকার পক্ষে তাদের জন্য ‘কানাডা অলিম্পিক পার্ক’-এ স্থায়ী বাসস্থানের বন্দোবস্ত করা হয়।

নামঃ HODORI
সৃষ্টিকর্তাঃ Kim Hyun
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক  
স্থানঃ Seoul, South Korea
সালঃ ১৯৮৮

কোরিয়ান শব্দ ‘Ho’ হচ্ছে বাঘ আর ‘Dori’ ব্যবহৃত হয় পৌরুষব্যঞ্জক অর্থে সে দেশের সাধারণ নাগরিকদের পাঠানো মোট ৪৩৪৪টি এন্ট্রির মধ্যে ২২৯৫ জন বাছাই করা প্রতিযোগীর মধ্য থেকে Kim Hyun-এর Hodori নির্বাচিত হয়। খরগোশ, কাঠবেড়ালি, হাঁস আর বাঘের ফাইনাল প্রতিযোগিতার মধ্যে  Hodori শৌর্য, বীরত্ব আর আভিজাত্যের প্রতীক হিসেবে নিজেকে প্রমাণিত করে জয়ী হয় তার মাথায় ঐতিহ্যবাহী কোরিয়ান টুপি ‘sangmo’ আর গলায় ঝুলছে অলিম্পিকের পাঁচটি বলয়। এই বছরই কার্টুনের বই ‘Come Along Hodori’ কোরিয়ান কার্টুন প্রতিযোগিতায়ও শ্রেষ্ঠ হিসেবে পুরস্কৃত হয়।

নামঃ MAGIQUE
সৃষ্টিকর্তাঃ Philippe Mairesse
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Albertville, France
সালঃ ১৯৯২


Magique’-এর জন্ম হয়েছিল বড়ো অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে। প্রচুর সংখ্যক মডেল হাতে পেয়েও কর্মকর্তাদের কোনওটাই পছন্দ হচ্ছিল না। উপায়ান্তর না দেখে কর্মকর্তারা অলঙ্করণ শিল্পী Michel Pirus-এর আঁকা একটি পার্বত্য ছাগলের মডেল নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করেন। শেষে ‘ম্যাজিক’ শব্দটার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে  Philippe Mairesse আসরের দুইবছর আগে এই ম্যাসকটের সৃষ্টি করেন। রঙ নির্বাচন করা হয় ফ্রান্সের জাতীয় পতাকা থেকে। তারকাকৃতি এই ম্যাসকট স্বপ্ন এবং কল্পনার প্রতীক। ‘Magique’-এর বিশেষ পাণ্ডিত্যমূলক ভূমিকাও ছিল সেই অলিম্পিকে। মোট ৭৯২৪ জন স্বেচ্ছাসেবীকে কম্পিউটার প্রোগ্রামের মধ্য দিয়ে তাদের উদ্দেশ্য, ভূমিকা আর কর্তব্য সম্পর্কে অবহিত করেছিল সে

নামঃ COBI
সৃষ্টিকর্তাঃ Javier Mariscal
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Barcelona, Spain
সালঃ ১৯৯২

Cobi-কে সর্বপ্রথম জনসমক্ষে আনা হয় ১৯৮৭ সালে অর্থাৎ, ১৯৯২ বার্সেলোনা অলিম্পিকের প্রায় পাঁচবছর আগেই। ফলে ম্যাসকটটি বিভিন্ন বিপণন সংস্থার বিজ্ঞাপনে, ‘The Cobi Troupe’ নামে মোট ২৬ পর্বের অ্যানিমেশন সিরিজে এবং বিভিন্ন পোস্টারে সহজদৃশ্য হয়ে ওঠে। মোট ছয়টি ডিজাইন থেকে এই ম্যাসকটটিকে পছন্দ করা হয়। ৫ – ১২ বছর বয়সী দর্শকদের জন্যে নির্মিত ওই সিরিজ দারুণ জনপ্রিয়তা লাভ করে এবং বার্সেলোনা অলিম্পিকের প্রচারকেও দৃঢ় করে তোলে। মোট ২৪টা টিভি চ্যানেল এই শোয়ের স্বত্ত্ব কিনেছিল।

নামঃ HAAKON and KRISTIN
সৃষ্টিকর্তাঃ Kari and Werner Grossman
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Lillehammer, Norway
সালঃ ১৯৯৪


ভাইকিং পোশাকে সজ্জিত Haakon আর kristin দুজনেই নরওয়েবাসী। হাকন চতুর্থ হাকনসন, যিনি ১২১৭ – ১২৬৩ সাল পর্যন্ত নরওয়ের সম্রাট ছিলেন, আর তার মাতৃস্থানীয়া ক্রিস্টিনের স্মৃতিচারণায় এই দ্বৈত ম্যাসকট তৈরি করা হয়। এটিই অলিম্পিকের ইতিহাসে মানবরূপী ম্যাসকট হিসেবে প্রথম। ১৯৯৪ সালের Lillehammer অলিম্পিকে ১০ – ১১ বছর বয়সী প্রায় ১০,০০০ ছেলেমেয়েদের মধ্যে মোট আট জোড়া ছেলেমেয়েকে ‘জীবন্ত ম্যাসকট’ হিসেবে অভিনয় করতে নির্বাচন করা হয়েছিল। তারা একেকজন ছিল নরওয়ের একেকটা নির্দিষ্ট অঞ্চলের প্রতিনিধিস্বরূপ। Kari আর Werner Grossman মিলে এই ম্যাসকটের জন্ম দিলেও মূল ধারণা ছিল Javier Ramirez Campuzano-এর।

নামঃ IZZY
সৃষ্টিকর্তাঃ John Ryan
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Atlanta, U.S.A.
সালঃ ১৯৯৬

Izzy সম্পর্কে সবচেয়ে চমকপ্রদ ব্যাপার যেটা তা হচ্ছে এই ম্যাসকট বন্যপ্রাণী বা মানব বা নির্দিষ্ট কোনও বস্তুই নয়। বস্তুত এই নামও তার আসল নয়। ‘Whatizit’-এর সংক্ষিপ্ত রূপ উচ্চারণ করতে গিয়েই আসলে Izzy-এর সৃষ্টি। Kirby, Starz, Zack, Gleamer এবং Izzy – এই মোট পাঁচটি নাম থেকে ৭ – ১২ বছর বয়সী ৩২জন আমেরিকান ছেলেমেয়ে এই নামটি বেছে নিয়েছিল। এই অলিম্পিকের ম্যাসকটের নামকরণ বিষয়ে ১৬টা দেশ থেকে মোট ৩৩০০ পরামর্শ এসেছিল। ১৯৯৫ সালের শরতে কার্টুন নেটওয়ার্ক চ্যানেলে Izzy-কে নিয়ে ত্রিশ মিনিটের এক শিক্ষামূলক কার্টুন শো সম্প্রচার করা হয়।

নামঃ SUKKI, NOKKI, LEKKI and TSUKKI

সৃষ্টিকর্তাঃ Landor Associates

আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Nagano, Japan
সালঃ ১৯৯৮



Sukki, Nokki, Lekki আর Tsukki আদতে চার-চারটি প্যাঁচা। এদেরকে একসাথে ‘Snowlets’ নামেও অভিহিত করা হয়। মোট ৪৭,৪৮৪টি জমাকৃত মডেল থেকে এরা উঠে এসেছিল। Landor Associates নামের যে সংস্থাটি এই ম্যাসকটের জন্ম দিয়েছিল তারাই গত আটলান্টা অলিম্পিকের মশাল ডিজাইন করেছিল এবং পরবর্তী সল্ট লেক সিটি অলিম্পিকের ম্যাসকট নির্মাণেও অংশগ্রহণ করেছিল। গ্রীকপুরাণ অনুসারে বুদ্ধিমত্তার দেবী এথেনার বাহন হচ্ছে প্যাঁচা। Sukki, Nokki, Lekki আর Tsukki – এই চারটি প্যাঁচা যথাক্রমে অগ্নি, বায়ু, ধরিত্রী ও জলের প্রতিনিধিত্ব করে থাকে। পাশাপাশি এরা জাপানের প্রধান চারটি দ্বীপেরও প্রতিনিধি।

নামঃ SYD, OLLY and MILLIE
সৃষ্টিকর্তাঃ Matthew Hatton
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Sydney, Australia
সালঃ ২০০০


সমগ্র অস্ট্রেলিয়া আর বেশ কয়েকটি দেশে চালানো সার্ভের মাধ্যমে এই ত্রয়ী ম্যাসকটটি মনোনীত করা হয়। Matthew Hatton অস্ট্রেলিয়ার সুপরিচিত ক্যাঙ্গারু আর কোয়ালা বাদ দিয়ে যখন সার্বিক অর্থে কম পরিচিত তিনটি প্রাণী platypus (Syd), kookaburra (Olly) এবং echidna বা spiny anteater (Millie)-এর স্কেচ জমা দিলেন তখন তা এককথাতেই মনোনীত হয়ে গেল। এই তিনটি প্রাণী যথাক্রমে জল, বায়ু আর পৃথিবীর প্রতীক হিসেবে পরিগণিত হয়। এটাই অলিম্পিকের ইতিহাসে প্রথম ত্রয়ী ম্যাসকট।

নামঃ POWDER, COAL and COPPER
সৃষ্টিকর্তাঃ Landor/Publicis
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Salt Lake City, U.S.A.
সালঃ ২০০২


এই ম্যাসকট তৈরির কাজ শুরু হয় ১৯৯৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। ১৯৯৮ সালের ডিসেম্বর মাসে ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিক কমিটি এর স্বীকৃতি দান করে। Salt Lake City-এর Triad Center-এ ১৯৯৯ সালের ১৫ই মে তারিখে এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই ম্যাসকট সর্বসাধারণের জন্য উন্মোচিত করা হয়। পরে ওই বছরই ২৫শে সেপ্টেম্বর তারিখে এই ত্রয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। ৪২,০০০-এরও বেশি ছাত্রছাত্রী এই ম্যাসকটের জন্যে নাম পাঠায়। শেষে কার্যকরী কমিটি জাতীয় মতদানের মাধ্যমে এর নাম নির্বাচিত করে। অন্যসব নামগুলোর মধ্যে Sky, Cliff, Shadow এবং Arrow, Bolt, Rocky ছিল অন্যতম।
এই ম্যাসকটে Powder একটি snowshoe hare, Copper একটি coyote আর Coal হচ্ছে একটি black bearএই অলিম্পিকের মোটো ছিল Citius, Altius, Fortius (দ্রুত, উচ্চতর ও শক্তিমান) যা খরগোশের গতি, কোয়োটের উচ্চ পর্বতশৃঙ্গ ছোঁয়ার ক্ষমতা আর কালো ভল্লুকের শক্তিকে নির্দেশ করে।

নামঃ PHEVOS and ATHENA
সৃষ্টিকর্তাঃ Spiros Gogos
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Athens, Greece
সালঃ ২০০৪

PHEVOS এবং ATHENA নামের এই ম্যাসকটদ্বয়কে প্রাচীন গ্রীস এবং আধুনিক অলিম্পিকের মধ্যে সমন্বয়কারী হিসেবে ডিজাইন করা হয়েছে। এরা হলেন অলিম্পাসের দুই সহোদর-সহোদরা দেবদেবী; আলোক এবং সঙ্গীতের দেবতা এপোলো যার আরেক নাম ‘Phoebos’ এবং এথেন্সের রক্ষাকর্ত্রী ও বুদ্ধিমত্তার দেবী এথেনাএই ম্যাসকটের ডিজাইন কী হবে তা নিয়ে এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হলে সারা বিশ্বের ১৯৬ ডিজাইন এজেন্সি এবং ব্যক্তি নিজেদের প্রস্তাব পাঠিয়েছিল।

নামঃ NEVE and GLIZ
সৃষ্টিকর্তাঃ Pedro Albuquerque
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Turin, Italy
সালঃ ২০০৬


ইতালিয় ভাষায় Neve মানে তুষার আর Gliz–এর অর্থ বরফ। এই ম্যাসকটে Neve একটা তুষারগোলক আর Gliz হচ্ছে বরফঘনক। লালজামা গায়ে বালিকা Neve সমন্বয় আর নীলজামার বালক Gliz অ্যাথলিটদের ক্ষমতা ও শক্তির প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। এই ম্যাসকট রূপদানের উদ্দেশ্যে অলিম্পিকের তিনবছর আগে একটা আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২০০৩ সালের ২০ মে-এর মধ্যে জমা পড়ে মোট ২৩৭টি ডিজাইন। এগুলোর মধ্যে মাত্র পাঁচটিকে ফাইনালিস্ট হিসেবে নির্বাচিত করা হয় এবং পর্তুগিজ ডিজাইনার Pedro Albuquerque-কে অর্গানাইজিং কমিটির প্রেসিডেন্ট অফিসের তরফে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। ২০০৪ সালের ২৮শে সেপ্টেম্বর এই ম্যাসকট অলিম্পিক কমিটির হাতে তুলে দেওয়া হয়। ১৯৯২ সালে বার্সেলোনা ম্যাসকটের জনক Javier Mariscal এই প্রতিযোগিতায় অন্যতম জুরি ছিলেন।

নামঃ BEIBEI, JINGJING, HUANHUAN, YINGYING, NINI
সৃষ্টিকর্তাঃ Han Meilin
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Beijing, China
সালঃ ২০০৮



কোনও শিশুকে তার নাম পরপর দু’বার উচ্চারণ করে ডাকা চিনাদের একটি পরম্পরা। এতে স্নেহের প্রকাশ ঘটে। এই ম্যাসকটের প্রকৃত নামগুলো যথা – Bei, Jing, Huan, Ying Nini আসলে ‘Welcome to Beijing’-এরই প্রতিরূপ। এই পাঁচমূর্তি প্রত্যেককে অলিম্পিকের পাঁচটা রিংয়ের আলাদা আলাদা রঙ দেওয়া হয়েছে।
BeiBei: সে একটি মাছবিশেষ। তার রঙ নীল এবং সে সমৃদ্ধি কামনা করে। তার মাথায় চুলের ঢেউগুলো ঐতিহ্যবাহী চিনা অঙ্কনশিল্পের পরিচয়বাহী।
JingJing: বনজঙ্গলের প্রতিনিধি এই পাণ্ডা সুখ কামনা করে এবং তার রঙ কালো। তার মাথার পদ্মফুলের সজ্জা সং রাজত্বের (৯৬০ – ১২৩৪ খ্রিস্টাব্দ) বিখ্যাত Porcelain paintings থেকে অনুপ্রাণিত।
HuanHuan: সে অগ্নির প্রতীক। তার লাল রং ক্রীড়ার আবেগ চিহ্নিত করে।
YingYing: হলুদবর্ণের এই তিব্বতি হরিণকে ধরিত্রীর প্রতীক হিসেবে ধরা হয়। সে সুস্বাস্থ্য কামনা করে।
NiNi: নিনি আকাশের প্রতিনিধি। তার রঙ সবুজ এবং সে সৌভাগ্য কামনা করে। তার ডিজাইন চিনা ঘুড়ি থেকে অনুপ্রাণিত।

নামঃ QUATCHI and MIGA
সৃষ্টিকর্তাঃ Meomi design
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Vancouver, Canada
সালঃ ২০১০

Quatchi আর Miga ২০০৭ সালের ২৭শে নভেম্বর প্রথম জনসমক্ষে আসে উপস্থিত ছিল প্রায় ৮০০জন স্কুল পড়ুয়া। ভ্যাঙ্কুভার অলিম্পিকের ম্যাসকট নির্বাচনে আয়োজক কমিটি এক টেন্ডারের আয়োজন করলে বিভিন্ন অলঙ্করণ সংস্থা এবং শিল্পীদের মধ্য থেকে মোট ১৭৭টা আবেদনপত্র জমা পড়ে। ২০০৬ সালে কানাডিয়ান-আমেরিকান দ্বৈত সংস্থা মিওমি ডিজাইনের কাজ মনোনীত হয়।
Quatchi: একে ‘sasquatch’ নামের কানঢাকা এবং বুটজুতো ব্যবহারকারী এক অতিকায় বনমানুষের আদলে তৈরি করা হয় যাদের কানাডার গভীর জঙ্গলে আজও অস্তিত্ব রয়েছে বলে দাবি করা হয়।
Miga: মিগা এক পৌরাণিক সামুদ্রিক ভল্লুক যার দৈহিক আকার আংশিক হিংস্র তিমি আর কিছুটা ভল্লুকের মতোভ্যাঙ্কুভারের দ্বীপগুলোতে তাদের দেখা মিলত বলে পুরাণে কথিত আছে।

নামঃ WENLOCK
সৃষ্টিকর্তাঃ Iris design agency
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ London, U.K.
সালঃ ২০১২

২০০৮ সালে লন্ডন অলিম্পিকের ম্যাসকট নির্বাচনী প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। ১০০-রও বেশি ডিজাইনার, শিল্পী আর এজেন্সি তাদের নিজস্ব প্রস্তাব জমা করেন।
Shropshire-এর Much Wenlock শহরের নামানুসারে এই ম্যাসকটের নামকরণ করা হয়। এর জন্ম আসলে একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনার ফলশ্রুতি। Michael Morpurgo-এর বক্তব্য অনুযায়ী, লন্ডনের অলিম্পিক স্টেডিয়াম নির্মাণের সময় গলিত স্টিলের শেষবিন্দু থেকেই আচমকা এই ম্যাসকটের জন্ম হয়েছিল। এর মাথার আলোকটি লন্ডনের বিখ্যাত কালো ট্যাক্সির পরিচায়ক। কপালের আকার দেওয়া হয়েছে স্টেডিয়ামের ছাদের আদলে। চোখটা আসলে একটা ক্যামেরার লেন্স যা দিয়ে সে তার দেখা সবকিছুকে ক্যামেরাবন্দি করে। কবজিতে পরে আছে অলিম্পিকের পাঁচটা আলাদা রঙের ব্রেসলেট। আর মাথার তিনটি চুড়ো হচ্ছে তিনজন বিজয়ীর মঞ্চ। তার শারীরিক বৈশিষ্ট্য লন্ডনে সারা বিশ্ববাসীকে আমন্ত্রণ জানায়।
অলিম্পিক চলাকালে লন্ডনের রাস্তাঘাট, পার্ক, ভূতল স্টেশনগুলোর প্রবেশদ্বারে Wenlock-এর মোট ৮৪টি ভাস্কর্য দিয়ে সাজানো হয়েছিল। মোট ২২জন ডিজাইনার সাজিয়েছিলেন এগুলোকে।

নামঃ THE HARE, THE POLAR BEAR and THE LEOPARD
সৃষ্টিকর্তাঃ Silviya Petrova (Hare)
Oleg Seredechniy (Polar Bear)
Vadim Pak (Leopard)
আসরঃ শীতকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Sochi, Russia
সালঃ ২০১৪



ম্যাসকটের এই তিনমূর্তি বিজয়ী মঞ্চের তিন স্থানাধিকারী। এই ম্যাসকট নির্বাচনে প্রায় ২৪,০৪৮টি ড্রয়িং জমা পড়েছিল সারা বিশ্ব থেকে। প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় ধাপে বিশেষজ্ঞ জুরি দ্বারা মাত্র ১০টি আঁকা নির্বাচিত হয়। ২০১১ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হিসেবে এই ম্যাসকট মনোনীত হয়। ২০১২ সালে রাশিয়াতে এই ম্যাসকটের ২৫-রুবল কয়েন বাজারে ছাড়া হয়।

নামঃ VINICIUS
সৃষ্টিকর্তাঃ Birdo Produções
আসরঃ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
স্থানঃ Rio De Janeiro, Brazil
সালঃ ২০১৬

এই ম্যাসকট ব্রাজিলিয়ান সঙ্গীতশিল্পী Vinicius de Moraes-এর প্রতি শ্রদ্ধার্ঘস্বরূপ তৈরি করা হয়রিও ২০১৬ ম্যাসকট সৃষ্টিতে ২০১২ সালের নভেম্বর মাসে এক টেন্ডার ডাকা হয় যাতে ব্রাজিলের ডিজাইন, অ্যানিমেশন আর ইলাস্ট্রেশন জগতের দিকপালরা অংশগ্রহণ করেন২০১৩ সালে ম্যাসকটের চূড়ান্ত ডিজাইন নির্বাচন করা হয়। ২০১৪ সালের ২৩শে নভেম্বর তারিখে Vinicius পৃথিবীর আলো দেখে। তিন সপ্তাহ পরে এর নামকরণের ব্যাপারে জনমত সংগ্রহ করা হয়। মোট ৩,২৩,৩২৭টি ভোট পড়ে। শেষ অবধি তিন ফাইনালিস্ট, Oba Eba; Tiba Tuque Esquindim; এবং Vinicius Tom-এর মধ্যে শেষেরটি ৪৪% যোগ্য ভোট পেয়ে জয়লাভ করে। ব্রাজিলের রিও-তে অবস্থিত প্রাক্তন আই.ও.সি প্রেসিডেন্টের নামে উৎসর্গীকৃত স্পোর্টস স্কুল Ginásio Experimental Olímpico Juan Antonio Samaranch-এ Vinicius জনসাধারণের সামনে আনা হয়।
_____
তথ্যসূত্র ও ছবিঃ আন্তর্জাল

No comments:

Post a comment