গোলটেবিল:: গ্রিমভাইদের রূপকথাঃ মোহনলাল গঙ্গোপাধ্যায় :: আলোচনাঃ সহেলী চট্টোপাধ্যায়


বইঃ গ্রিমভাইদের রূপকথা
অনুবাদকঃ মোহনলাল গঙ্গোপাধ্যায়
আলোচনাঃ সহেলী চট্টোপাধ্যায়

আজ থেকে প্রায় দু’শো বছর আগের কথা জেকব ভিলহেলম গ্রিম দুই ভাইয়ের বয়সের ব্যবধান মাত্র এক বছরের দেশ জার্মানি দুজনেই লেখাপড়ায় খুব ভালো গোটা ইউরোপ ঘুরে লোকের মুখে মুখে ছড়িয়ে থাকা অজস্র রূপকথা সংগ্রহ করেছিলেন এই দুই ভাই বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে সেই সব রূপকথা বাংলা ভাষায় অনুবাদ করেছিলেন মোহনলাল গঙ্গোপাধ্যায় শীত পড়লেই বড়দিন বড়দিন মানেই ছুটি ছুটিটা কী রকম হবে? দিদারা গল্প বলবে আর ছোটোরা আগুনের ধারে ঘেঁষাঘেঁষি করে বসে গল্প শুনবে বাইরে বরফ পড়ছে শীতকালই হল গল্প শোনার আদর্শ সময় শীতের দেশের লোকজন এমনটাই মনে করতেন।

এবার দেখে নেওয়া যাক গল্পগুলো কী রকম? শুরুতেই আছে স্নো হোয়্যাইট। বাংলায় তুষারিণী আর সাত বামন। বার বার শুনলেও আমাদের কাছে পুরোনো হবার নয়। সাত বামন নিজেদের ছোটো বোনের মতো স্নো হোয়্যাইটকে আগলে রেখেছিল। খল সেই বিমাতা তাকে বার বার মেরে ফেলার চেষ্টা করত এই পৃথিবীর সব কিছুই তো আর খারাপ নয়।

আছে সিন্ডারেলার গল্প। সিন্ডারেলা বাংলায় হয়েছেন পাঁশমণি। এই গল্প জানে না এমন লোক পৃথিবীতে নেই। বারো ভাইয়ের গল্পে ছোটো বোন অনেক কষ্ট সহ্য করেছিল তার বারো জন দাদার ভালোর জন্য। আমাদের বাংলায় যেমন আছে সাত ভাই চম্পা আর পারুল বোনের গল্প।

হাঁস চরানি মেয়ের গল্পে দাসীর কূটবুদ্ধিতে রাজকন্যা হাঁস চরানি মেয়ে হয়ে যায়। আর দাসী রাজকন্যা সেজে বসে থাকে। কিন্তু সত্যিটা একদিন বেরিয়ে আসে। আসলে রূপকথা ঠিক কল্পলোকের গল্প নয়। নানান নিষ্ঠুর ঘটনার মধ্যে দিয়ে আমাদের কঠিন বাস্তবের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়। সব সময় সত্যের জয় হবে, এই শিক্ষাই দেয়।

নাচুনি রাজকন্যায় আছে বারোজন রাজকন্যার গল্প। রোজ রাত্তির হলে এরা একটা অন্য জগতে চলে যেত। এরা কখনও চাইত না এদের সত্যিটা কেউ জেনে ফেলুক। নিজেদের জগত থেকে আমাদেরও ফিরতে ইচ্ছে করে না। আমরা চাই না কেউ আমাদের বিরক্ত করুক।

তিন টুকরো সাপ ঠিক ছোটোদের গল্প নয়। এই সঙ্কলনে না রাখলেও হত। এক খামখেয়ালী রাজকন্যের গল্প যে নিজের স্বামীকে হত্যা করার চক্রান্ত করে। সেই স্বামীই একদিন রাজকন্যাকে মৃত্যুর মুখ থেকে জয় করে এনেছিল।

লাল ঢাকা খুকি-তে দেখতে পাই এক ধূর্ত নেকড়েকে। দুরাত্মার ছলের অভাব হয় না।

ধড়ফড়ি মাছের গল্পে দেখি অতি লোভের ফল কখনও ভালো হয় না। আমাদের সংস্কৃতে একটা গল্প আছে পুনর্মূষিক ভব, ব্যাপারটা অনেকটা সেই রকম।

সুলতান কুকুরের গল্পে দেখি এক প্রভুভক্ত কুকুরকে। তার মালিক ভেবেছিল সুলতান বুড়ো হয়ে গেছে এবার তাকে মেরে ফেলা উচি কিন্তু সুলতানের কর্তব্যপরায়ণতা দেখে সে নিজের ভুল বুঝতে পারে।

ব্যাং রাজকন্যা গল্পে রাজা নিজের মেয়েকে বলছেন তোমার নিজের দরকারের সময় যা অঙ্গীকার করেছ এখন তা ভুললে চলবে না। প্রতিপালন করো।

বুনো গোলাপের বেড়া তো আমাদের অতি পরিচিত গল্প স্লিপিং বিউটি। এক পরীর অভিশাপে রাজপুরীতে সবার চোখে কালঘুম নেমে এসেছিল।

বুড়ো আর তার নাতি গল্পে ছোট্ট ছেলেটির কথায় বাবা-মা’র চোখ খুলে যায়। তারা বুঝতে পারে নিজের বাবার সাথে তারা অন্যায় আচরণ করছে।

আছে আমাদের ছেলেবেলার বন্ধু বুড়ো আংলা। আঙ্গুলের মতো যার সাইজ।

মানুষের মতো জীবজন্তুরাও দয়ামায়া ভালবাসার পাত্র, এই শিক্ষা দেওয়া হয়েছে বনের বাড়ি গল্পে। বেশ কিছু মজার গল্পও এতে স্থান পেয়েছে, রূপকথার কিছু মজার চরিত্র। আছে জাদুকর, পরী, ডাইনি, নিরীহ পশু পাখি, ধূর্ত কিছু চরিত্র আর রাজকুমার রাজকুমারী তো আছেই। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ বাদ নেই।

আরও অজস্র রূপকথা। গ্রিমভাইদের রূপকথা সংগ্রহে রাখার মতো একটি বই। সারা পৃথিবীর ছোটোদের জন্য এক চিরন্তন উপহার। শুধু ছোটোদের নয়, আমরা যারা বয়সে বড়ো হলেও এখনও মন থেকে বড়ো হইনি তাদেরও সংগ্রহে রেখে দেওয়া উচিত।

গ্রিমভাইদের রূপকথা
অনুবাদকঃ মোহনলাল গঙ্গোপাধ্যায়
প্রকাশকঃ আনন্দ পাবলিশার্স
দামঃ ২৫০ টাকা
_____

No comments:

Post a comment