গোলটেবিল:: নিয়ম যখন ভাঙ্গেঃ অভিজ্ঞান রায় চৌধুরী:: আলোচনাঃ দ্বৈতা হাজরা গোস্বামী


বইঃ নিয়ম যখন ভাঙ্গে
লেখকঃ অভিজ্ঞান রায়চৌধুরী
পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ দ্বৈতা হাজরা গোস্বামী

বাংলা কিশোর সাহিত্যে বর্তমানে যাঁদের অসামান্য বলিষ্ঠ কলম পাঠকদের সাহিত্যের প্রতি আগ্রহ অনেকাংশে বৃদ্ধি করেছে তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন অভিজ্ঞান রায়চৌধুরী। ১৯৯৪ থেকে শুরু করে সুদীর্ঘ ২০ বছর কিশোর ভারতী, আনন্দমেলা প্রভৃতি প্রথম সারির পত্র পত্রিকা গুলিতে আমরা ওনার লেখা পড়ে এসেছি। "নিয়ম যখন ভাঙ্গে" ওনার সেরা গল্প সংকলনগুলির মধ্যে অন্যতম।
এই গল্প সংকলনে রয়েছে ১৯৯৪ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত লেখা অন্যতম সেরা গল্পগুলি। অর্থাৎ ২০১৪ পর্যন্ত লেখকের লেখক জীবনের একটা সামগ্রিক চালচিত্র গল্পগুলিতে প্রকাশ পেয়েছে। কল্পবিজ্ঞানের গল্পের সঙ্গে মানবিক, ভৌতিক নির্মল হাস্যরসের গল্পও স্থান পেয়েছে এই সংকলনে।
বর্তমানে কিশোরদের মনোযোগ, আগ্রহ ধরে রাখা, তাও সাহিত্যের মাধ্যমে - একটি অত্যন্ত দুঃসাধ্য বিষয়। অভিজ্ঞান রায়চৌধুরীর "নিয়ম যখন ভাঙ্গে" বইটি পড়ে আমার প্রথম যে কথাটা মাথায় এল তা হল এই বইটি একদম সেই ভাষায় লেখা যা আজকের কিশোরদের বাধ্য করবে ভিডিও গেম বন্ধ করে একটু সময়ের জন্যে বইয়ের পাতায় হারিয়ে যেতে। আমাদের চিরকালের ভালো লাগা গল্পগুলির সিংহভাগ কিন্তু আমাদের কিশোর বয়সে পড়া গল্পগুলিই
বইটির ঝকঝকে প্রচ্ছদ রংচঙে ছবিগুলি প্রথমেই নজর কাড়ে। শিল্পী যে প্রত্যেকটি গল্পই মনোযোগ সহকারে পড়েছেন তা অনস্বীকার্য।

এবারে আসি গল্পে। ১৮ টি গল্প আছে এই গল্প সংকলনে
চাণক্য :
প্রথম গল্প চাণক্য সতীনাথ মুখোপাধ্যায় পাঠ করেছিলেন রহস্য রোমাঞ্চ ‘আসছে সে আসছে তে’কুনজনডিও, এক অদ্ভুত নামের জায়গার সঙ্গে প্রথমেই লেখক আমাদের পরিচয় করান। সেখানে এসেছে ইঞ্জিনিয়ার অনিমেষ। তার পরিচয় হয় এক বৃদ্ধ ভদ্রলোকের সঙ্গে। আশেপাশের লোকজনের ধারণা লোকটি পাগল। কিন্তু ধীরে ধীরে রহস্যময় ভদ্রলোকের অন্য এক পরিচয় পায় অনিমেষ। সেই বৃদ্ধের কাছে আছে এক রহস্যের চাবিকাঠি। এই পর্যন্ত পাঠকের ভাবনা যে পথে এগিয়েছে শেষে সেখানেই দুর্দান্ত মোচড়ে গল্প ঘুরে যায়। যান্ত্রিকতার মোড়কে মানবিকতা। এবং মানবিকতার মোড়কে যন্ত্র। দুয়ের এক অসামান্য সহাবস্থান যা পাঠককে চমকিত করে।
এর সঙ্গে দেশপ্রেমের স্পর্শ গল্পের "চাণক্য” নামটিকেই যেন মহিমান্বিত করে।
লেখকের গল্প বলার ধরণ এমনি যে অনায়াসে ছত্রে ছত্রে বিজ্ঞান এর বহু তথ্য খুব সহজ ভাবে ধরা দিয়েছে। অথচ কোথাও জটিলতার রেশ মাত্র নেই, পাঠকমন বিন্দুমাত্র ভারাক্রান্ত হয় না। অপ্রয়োজনীয় তথ্য না থাকায় প্রত্যেকটি গল্প খুব স্মার্ট নির্মেদ
অনাথবন্ধু :
একটি নির্মল হাসির গল্প। এই গল্পটি আগে জয়ঢাক পত্রিকায় পাঠ করেছি আমার প্রিয় গল্প বলেই। কিন্তু বারবার পড়তে ভালো লাগে এর সংলাপ গুলির জন্যে।
প্রফেসর ইয়াকোয়ার মৃত্যু রহস্য :
অসাধারণ একটি গল্প। গল্পের বক্তা অনিলিখা। গল্পের কেন্দ্রবিন্দুতে একটি গাছ। গাছ নিয়ে সত্যজিতের যে সমস্ত অদ্ভুত গল্প পাঠক পড়েছেন এটি কিন্তু একদমই তার থেকে স্বতন্ত্র। পড়লেই বুঝতে পারবেন। গাছের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক, নির্ভরতা, এবং বলা বাহুল্য শেষের চমক পাঠককে অভিভূত করে
পার্কের সেই লোকটা :
"সব কিছুর মধ্যেই একটা প্যাটার্ন আছে" এই রকম একটি অদ্ভুত প্রসঙ্গকে নির্ভর করে লেখা গল্প কিশোরদের নতুন ভাবে ভাবতে শেখাবে, অনুসন্ধিত্সু করে তুলবে বলা বাহুল্য। গল্পটির মানবিক আবেদন সত্যি কিছুক্ষণ স্তব্ধ করে দেয়
আমরা নেই :
গল্পের এই অদ্ভুত নাম দেখে গল্পটি পড়ার একটা আকর্ষণ তৈরী হয়। এবং সেটা শেষ হয় এই নামটিতেই এসে। ঠিক কবিতার মতো এক বিন্দু থেকে শুরু হয়ে সেই বিন্দুতেই পরিণতি। বৃত্তের মধ্যে একটি মেয়ের গল্প। তার নাম রোজমেরী সানচেজ। দূরের এক গ্রহ থেকে কয়েক আলোকবর্ষ পার হয়ে উত্তর আসবে। তার অপেক্ষায় কাটে রোজমেরীর জীবনের প্রতি মুহূর্ত। কী সেই উত্তর? কেনই বা রোজমেরী তার অপেক্ষায়? "আমরা নেই" গল্পটি কিছুক্ষণের স্তব্ধতা উপহার দেয় শেষ হওয়ার পরেও।
নিয়ম যখন ভাঙ্গে :
এই গল্পের নামে বইটির নাম। বইয়ের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মানবিক গল্প। দীপনের গল্প। "আরোগ্য" তে ওরা সবাই ক্লোন। ওদের জীবনে একটাই উদ্দেশ্য - জিন দাতাকে রক্ষা করা। সে অঙ্গ প্রত্যঙ্গ দিয়েই হোক বা জীবন দিয়েই হোক। কিন্তু দীপনের জীবনে ঘটে যায় এক অভূতপূর্ব ঘটনা। ওর জিন দাতা বাবা ওর সঙ্গে দেখা করতে আসবেন শুনে দীপন এর আনন্দ ধরে না। কিন্তু কী হয় অবশেষে? নিয়ম কী সত্যিই ভাঙ্গে?
অচেনা :
গল্পটি আগেও পড়েছি কিশোর ভারতীর পাতায়। ভারী মজার একটি গল্প। সুদীপ বাবুকে নিয়ে তার প্রতিবেশীদের মধ্যে তৈরী হয় কৌতূহল। আর এই কৌতূহল এবং তার পরিণতি ঘিরেই গল্প। ছাপোষা চাকরিজীবি বাঙালি চরিত্রের বিভিন্ন দিক স্যাটায়ারের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন লেখক।
ডারউইনের ডায়েরি থেকে :
এত তথ্যবহুল, সুন্দর বর্ণনা দার্শনিক অনুভূতির গল্প আগে পড়েছি বলে তো মনে হয়না। এই গল্পটি অনিলিখা শোনায়। ১৮৩১ থেকে ১৮৩৬ এই পাঁচ বছর ডারউইনের জাহাজ ভ্রমণে কেটেছিল তাঁর ছিল ডায়েরি লেখার নেশা। কিন্তু হঠাৎ মাঝের ১৫ দিন তিনি ডায়েরি লেখা ছেড়ে দিলেন। কেন? কী ঘটেছিল এই সময় যা ডারউইন এর এতদিনের বিশ্বাসে আঘাত হেনেছিল এবং ডারউইনকে দার্শনিক করে তুলেছিল? গল্পের বিষয়বস্তু এটিই। অনুপম সুন্দর উপস্থাপনা
নতুন জুতো:
নতুন জুতো অনেকের কাছে একটি সামান্য জিনিস হলেও অভাবের মধ্যে বেড়ে ওঠা মানসের কাছে স্বপ্ন। মানস কী শেষ অব্দি নিজের স্বপ্নের বস্তুকে ছুঁতে পারে? না সেটা অধরা থেকে যায়? গল্পটি লেখকের লেখা অত্যন্ত প্রিয় মানবিক গল্প গুলির মধ্যে অন্যতম
বিনোদবাবুর আসর :
গায়ে শিহরণ জাগানো ভৌতিক অলৌকিক রসের গল্প। এটি লেখকের লেখা প্রথম গল্প বলে শুনেছি। কিন্তু পড়ে কখনওই তা মনে হয় না। কিশোর সাহিত্যিক বিনোদ বাবু রেডিওতে প্রতি শনিবার "বিনোদ বাবুর আসর" নামে গল্প বলার আসরে গল্প বলতেন। একদিন হঠাৎ করেই তিনি বলে ফেললেন নিজের গল্প
পিকোরাস :
বোন
বার বার ফেল করে। পড়াশোনায় মাথা নেই। কিন্তু হঠাৎ করে সেই বোনই কেমন বদলে যেতে শুরু করে। যা চমকে দেয় দাদা সহ বাড়ির সব সদস্য দের। উত্তর খুঁজতে শুরু করে জটিল প্রশ্নের। দাদা আর বোনের সুন্দর, মজার সংলাপ এবং প্লট-এর রহস্যময়তায় খুব সুন্দর একটি গল্প। যার মধ্যে সহজ ভাবে এসেছে বিজ্ঞানের বহু তথ্য
মাছেরাও যখন :
জীববিজ্ঞান মহাকাশ বিজ্ঞানের জগতে খুব পরিচিত নাম বিজ্ঞানী দিমেত্রি। তিনি হঠাৎ করে মত্ত হলেন মাছের গবেষণায়। অনিলিখা এই বিষয়টি দিমেত্রির কাছ থেকে জানার পর একে একে ঘটতে থাকে অদ্ভুত সব ঘটনা। কিন্তু গল্পটা আরও একটু বড় আকারে লেখকের কাছে আশা করব। শেষ হয়েও হইলো না শেষ। কৌতুহল রয়ে গেল
অতিথি :
দীপুর মা বাবা বাড়িতে নেই। সেই সময় বাড়িতে এলেন এক অচেনা অতিথি। তারপরে কী হলো? তিনি কি দীপুকে কিছু শিখিয়ে গেলেন? এবং আমাদেরকেও?
পশ্চিমের ঘর :
পশ্চিমের ঘরটা সবসময় বন্ধই থাকে। কোন রহস্য লুকিয়ে আছে ঘরে? ভৌতিক গল্প হিসেবে গল্পটি পড়তে শুরু করলেও অন্যরকম উত্তর পাওয়া যায়। গল্পটি একটি ফিল গুড গল্প। শেষটা খুব ভালো লাগে
আইনস্টাইনের দুরদৃষ্টি :
এই গল্পেরও কথক অনিলিখা। অনিলিখার হাতে একটি দূরবীন এবং তাকে ঘিরেই সবার কৌতূহল। দূরবীনটির মধ্যে এমন কিছু বিশেষত্ব আছে যা চমকে দেয় অনিলিখাকেও। কল্পবিজ্ঞান এর খুব ইউনিক কনসেপ্ট উঠে এসেছে এই গল্পে। এই ভাবনার জন্যে সাধুবাদ
ব্রেন ইন্টারনেট :
পার্থ বাবুর ঘরে চুরি করতে ঢোকে এক চোর। এমন একটা সময়ে যখন চুরি একটা বিলুপ্ত শিল্প। এবং চুরির শাস্তি অঙ্ক কষা দুঃখের কবিতা লেখা। গল্পটি বেশ মজার
শুধু একটি সংখ্যার অপেক্ষায় :
স্টিল প্লান্ট-এ ব্লাস্ট ফার্নেস-এ কাজ করছে অনিমেষ। অনিলিখার মুখে গল্পটি এগোতে থাকে। ব্লাস্ট ফার্নেস কিভাবে কাজ করে সেই সম্পর্কে অনেক তথ্য আছে গল্পটিতে। অনিমেষ এর প্ল্যান। একটা সংখ্যা এবং তাকে ঘিরে রহস্য। শেষ অব্দি কী হয়? সৃষ্টির আনন্দ কি প্রতিশোধ এর ইচ্ছের থেকেও বড়? এই একটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে চেয়েছে গল্পটি
একটাই দিন :
এই সংকলনের শেষ গল্প। এই গল্পটি আপাত ভৌতিক মনে হলেও বিবেকের গল্প। বিবেকের দংশনে একটাই দিন যখন বার বার ফিরে আসে তখন কী হয়?

পরিশেষে বলি, বর্তমানে কিশোর সাহিত্যে কিশোরদের মনের মতো করে তাদের ভাষায় গল্প বলিয়ের খুব অভাব। এই গল্প সংকলন সেখানে আশার আলো দেখায়। এবং উপরি পাওনা বহু শিক্ষনীয় তথ্য যা "জলবৎ তরলম" করে পেশ করা হয়েছে মানবিক অনুভূতির ককটেল-এ। লেখকের কলম অক্ষয় হোক এই শুভকামনা রইলো

বইঃ নিয়ম যখন ভাঙ্গে
লেখকঃ অভিজ্ঞান রায়চৌধুরী
প্রকাশক - ইন্ডিয়ান পাবলিশিং হাউস 
মূল্য ১৫০ টাকা
_________

No comments:

Post a comment