গোলটেবিল::জীবরামের গল্প – হিমানীশ গোস্বামী :: আলোচনাঃ সৌগত সেনগুপ্ত


জীবরামের গল্প – হিমানীশ গোস্বামী
আলোচনাঃ সৌগত সেনগুপ্ত

পান্ (Pun) বা শব্দ নিয়ে কথার খেলায় অদ্বিতীয় ছিলেন শিবরাম চক্রবর্তী। যিনি নিজেকে শিব্রাম চকরবরতি বলতে বা লিখতে পছন্দ করতেন। তাঁর লেখা হর্ষবর্ধনের হাসির গল্প তোমরা সবাই পড়েছ। তরুণ হিমানীশ গোস্বামী একবার সেই শিবরামের হর্ষবর্ধন চরিত্রটিকে নিয়ে একটা গল্প লেখেন যার নাম ছিল চেঞ্জে গেলেন হর্ষবর্ধন। শিবরাম সেই লেখাটি পড়ে এতটাই খুশি হন যে তাঁর পরবর্তী গল্পসঙ্কলনে হিমানীশের গল্পটিকে স্থান দেন।
ম্যাজিক ল্যাম্পের এই হাসি স্পেশাল সংখ্যায় আজ সেই হিমানীশ গোস্বামীর একটা বই নিয়ে তোমাদের বলব। ১৯২৬ সালে অবিভক্ত ভারতের ফরিদপুরে তাঁর জন্ম। বাবা পরিমল গোস্বামী ছিলেন সে যুগের বিখ্যাত লেখক। শিবরাম চক্রবর্তীর সান্নিধ্যে এসে তিনি অনুপ্রাণিত হন হাস্যরসাত্মক লেখায়। এছাড়া রহস্য ও রম্যরচনা ছাড়াও ভ্রমণকাহিনি ও কার্টুনও এঁকেছেন তিনি। বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যুক্ত থাকলেও প্রধানত আনন্দবাজার সংস্থার সঙ্গেই তিনি দীর্ঘ কর্মজীবন কাটিয়েছেন।
২০১২ সালের ১৪ই মার্চ তিনি আমাদের ছেড়ে চলে যান। বিভিন্ন সংস্থা থেকে তাঁর একাধিক বই থাকলেও পূর্ণাঙ্গ রচনাসমগ্র প্রকাশ করার প্রয়াসে এগিয়ে আসেননি কোনও প্রকাশকই। অনেক বই এখন দুষ্প্রাপ্য।  সূর্য পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত জীবরামের গল্প বইটার কথা আজকে বলব। বইমেলা ১৪১২ বা ২০০৬-র শুরুর দিকে বইটি প্রকাশিত হয়। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণে ছিলেন প্রণবেশ মাইতি। এই বইতে সঙ্কলিত হয়েছে জীবরামকে নিয়ে লেখা ১৭টি গল্প। যথাক্রমে,
·        জীবরাম কি বোকা ছিল?
·        চি চি চি চি চি
·        চোর চারু চরে জীবরাম
·        আত্মারাম খাঁচা ছাড়া
·        জীবরামের শেষ যাত্রা
·        ফৌজদাড়ি মামলায় জীবরাম
·        জীবরামের ম্যালেরিয়া মাসি
·        তাল-বেতালের গল্প
·        আগে মেসোর সঙ্গে মেশো
·        বনসাগর স্কুলের বনভোজন
·        কথা নিয়ে ঝামেলা
·        জীবরামের বিপদ
·        মামাদের মামাবাড়িতে জীবরাম
·        নরনারায়ণের খিদে নেই
·        পঞ্চবঁটি
·        কচুর মোরব্বা
·        জীবরামের ঘোড়াই ভ্রমণ
এই গল্পগুলো মূলত আনন্দমেলা ও কিশোর ভারতী পত্রিকাতে প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৯৫ - ২০০৩ সালের মধ্যে। শুকতারা, টগবগ এবং নবকল্লোল পত্রিকাতেও প্রকাশিত হয় একটা করে গল্প। কয়েকটি গল্পের প্রকাশকাল দেওয়া নেই।
এবার দেখা যাক জীবরাম আসলে কে? লেখকের কথায় শিবরাম চক্রবর্তী আবার ফিরে এসেছেন জীবরাম চকরবরতি নামে। মাঝে মাঝে শিব্রামের অনুকরণে তার নাম ডাকা হয়েছে জীব্রাম বলে। কিছু গল্পে লেখক নিজেও একটা চরিত্র। জীবরামকে লেখক ডাকে হিম্বাবু বলে, আর তাঁর স্ত্রীকে হিম্বিবি! জীবরাম প্রথমে পড়ত বনসাগর স্কুলে। সেটা গ্রাম বা মফস্বলের দিকে। পরের দিকে তাকে কলেজে পড়তে ও কলকাতা শহরে থাকতে দেখা গেছে। স্কুল থেকে কলেজে এসেও তার কথা নিয়ে খেলা বন্ধ হয়নি।
বিভিন্ন গল্পে জীবরামের বিভিন্ন বন্ধুদের সঙ্গে পরিচয় হয়, তাদের নামগুলোও দারুণ মজাদার। চর্যাপদ ধর, নরনারায়ণ, হরিনারায়ণ, চিরঞ্জীব, মনিটর পাঁচু। বনসাগর হাই স্কুলের সুপারিন্টেন্ডেন্ট ছিলেন দুর্গতিহরণ বাবু। দারোয়ান ছিল দুখিরাম। এদেরকেও কথার প্যাঁচে নাজেহাল করে তুলত জীবরাম। সেসব লেখা পড়লেই বুঝতে পারবে প্রায় সমোচ্চারিত ভিন্নার্থক শব্দ নিয়ে কী দারুণ খেলাই না দেখিয়েছেন হিমানীশ বাবু।
বিভিন্ন গল্পে জীবরামের বেশ কিছু মামা, মামী, পিসি-পিসেমশায় এমনকি মাসি-মেসোর উল্লেখ আছে। অনেক বন্ধুবান্ধবদেরও কাকা মামা মেসোমশায়রাও জীবরামকে চেনে। এই বইয়ের শেষ গল্পে জীবরামের মায়ের উল্লেখ আছে। সেখানে কথার খেলায় জীবরাম তার মাকেও নাস্তানাবুদ করেছে।
সূর্য পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত জীবরামের গল্প বইটার প্রথম সংস্করণের মূল্য ছিল ৫০ টাকা। মূল্য পরিবর্তন সাপেক্ষ। বইটির ISBN No. 81-89710-03-6.
উৎসর্গ পত্রেও লেখক তাঁর স্বভাবসিদ্ধ কথার খেলা থেকে বেরোতে পারেননি। সেটা তোমাদের জন্য এখানে তুলে দিচ্ছি।
....“এই বইটি যাদের হাতে দিচ্ছি তাঁরা সকলেই আমার সমসাময়িক, তাঁরা প্রত্যেকেই আমারই মতো গত শতাব্দীর লোক, যদিও এঁদের বয়স আমি ছাড়া কারোরই এগারো বছরের বেশি নয়।
এঁদের ডাক নামঃ ঋততোষ, গোডো, জোজো, বিষ্টু এবং বুনি।
এঁদের তোলা নামঃ ঈশাদৃতা, ঋষি, শ্রীজন, অর্ণব এবং তাতার।
এঁদের পদবিঃ গুহ, লাহিড়ি, বন্দ্যোপাধ্যায়, চক্রবর্তী এবং মুখোপাধ্যায়।
এঁদের বাসস্থানঃ সিঁথি, বসুপুকুর, বিধাননগর, পণ্ডিতিয়া (বালিগঞ্জ) এবং শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি রোড।
একটা কথা বলার আছে – কোন ডাক নাম, তোলা নাম এবং বাসস্থান কার কার সেটা ঠিক মনে পড়ছে না। এইটে একটা ধাঁধা – আমার কাছে এবং যাঁদের নাম ওপরে দেওয়া হল, তাঁদের কাছেও। এই ধাঁধাটির সঠিক উত্তর পরবর্তী সংস্করণে দেওয়া হবে (যদি সেটি প্রকাশিত হয়)।....”
এবারে তোমাদের কাজ হল বইটা খুঁজে জোগাড় করে পড়ে ফেলা আর ম্যাজিক ল্যাম্পকে জানানো কেমন লাগল আর যদি উপরের ধাঁধার সমাধান খুঁজে পাও তাহলে সেটাও আমাদের জানাতে ভুলো না, কেমন?

প্রখ্যাত কার্টুনিস্ট পি. কে. এস. কুট্টি-র তুলিতে হিমানীশ গোস্বামী
_____

No comments:

Post a comment