ইতিহাস:: বাঙালির প্রাচীন বাণিজ্য - কর্ণ শীল


বাঙালির প্রাচীন বাণিজ্য
কর্ণ শীল

যে জন চন্দনে মহাদেবের আরাধনা করে সে সাত মহাদেশের রাজা হয়। যে ভক্তহৃদয় শ্রীহরির সামনে চামর দুলিয়ে হরিনাম করে সে রথে চড়ে স্বর্গে যায়। ভাণ্ডারীর প্রয়োজন হাতির জন্য লবঙ্গ, ঘোড়ার জন্য লবণ, রাজমহলের মেয়েদের জন্য মানিক, প্রবাল, নীলা, মোতি, কুঙ্কুম, কস্তুরী গন্ধচুয়া আর বুড়ো বুড়ির ভোটকম্বল। রাজার মনে দুশ্চিন্তা, কী দিয়ে সাজা হবে অতিথির পান, কী দিয়ে পূজন হবে দেবতার
ডাক পড়ে নবদ্বীপ, ত্রিবেণী, সপ্তগ্রাম, খড়দহ মগরা, নীলাচল, শঙ্খদ্বীপ, কালিয়াদহ থেকে সওদাগরের। জলে ভাসে ডিঙা।
'দাঁড়ি বায় দু পাল তুলে/ সাগর শুরুর উপকূলে'

*            *            *            *

বাঙালি ভ্রমণপ্রিয়। বাঙালি বাণিজ্যবিমুখ। এখন মত দুটি একই সঙ্গে কোনকালে প্রচলিত হয়ে দাঁড়াল বুঝতে বড়ো বেগ পেতে হয়। প্রাচীনকালে মুদ্রা, টাকা, পেটিএম, ফোনপে' ব্যবস্থা যে ছিল না তা তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না। মুদ্রারও আগে বিনিময় ছাড়া উপায় ছিল না। এক-দু’রাত্রি অবশ্য সুদূর বিদেশেও ঠাঁই পাওয়া যেত, আহার্য পাওয়া যেত। সে প্রমাণ মহাভারতেও পাই। সেখানে  শান্তিপর্বের মোক্ষপর্ব্বাধ্যায়ে বলা আছে,
"অতিথির্যস্য ভগ্নাশো গৃহাৎ প্রতিনিবর্ত্ততে
তস্মৈ দুষ্কৃতিং দত্ত্বা পুণ্যমাদায় গচ্ছতি।
তৃণানি ভূমরুদকং বাক্ চতুর্থী সুনৃতা।
এতান্যপি সত্যং গেহে নোচ্ছিদ্যন্তে কদাচন।।"
যার অর্থ হল, "অতিথি অন্নপান অভ্যর্থনা না পেয়ে যে গৃহস্থের গৃহ থেকে নিরাশ হয়ে ফিরে যান, সে অতিথি গৃহস্থকে তার সমস্ত দুষ্কৃতি দিয়ে, সমস্ত পুণ্য গ্রহণ করে চলে যান।"
সুতরাং, ভ্রমণপ্রিয় বঙ্গবাসী, বা সে যুগ অনুযায়ী গৌড়বাসী, সুহ্মবাসী বা রাঢ়দেশীয়রা বিদেশ ভ্রমণকালে সেবাযত্ন যারপরনাই পেয়ে থাকত। এবার যদি সেই দেশের কোনও সুন্দর জিনিস বা পণ্য পছন্দ হয়ে যেত, তখন উপায়? সে তো আর আতিথেয়তার মধ্যে পড়ে না। তখন একমাত্র উপায় নিজের কোনও সমমূল্যের বস্তুর সঙ্গে বিনিময় করা। যেমন, গঙ্গাহৃদির উৎকৃষ্ট রেশম কাপড়টির পরিবর্তে এক থলে আখরোট পেস্তা নিয়ে আসা

প্রাচীন ভারতবর্ষে রাজারাজড়ার নাম আমরা ইতিহাসের পাতায় পাতায় পাই। কখনও তাঁদের দেখি উন্নতির শিখরে উঠতে, আবার পৃষ্ঠাটি উলটে গেলেই বদলে যান রাজা, পরিবর্তন ঘটে রাষ্ট্রব্যবস্থার। আসলে রাষ্ট্র নামে যে যন্ত্রটা চলত, তার প্রধান চালক এবং রক্ষকই ছিলেন রাজা
ইঞ্জিনিয়ার যেমন যন্ত্রটিকে সচল রাখার জন্য সাহায্য নেন বিদ্যুৎশক্তি, শ্রমিক এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক রসদের, তেমনই রাজাও রাষ্ট্রযন্ত্রটি চালাতেন ধনশক্তির সাহায্যে। আর ধন উৎপাদনের মূল তিনটি উৎস ছিল কৃষি, শিল্প বাণিজ্য।

*            *            *            *

বাংলার ইতিহাস তার ভৌগোলিক গঠনের উপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে গড়ে উঠেছে। উত্তরে হিমালয় এবং হিমালয়ের কোলে অবস্থিত নেপাল, সিকিম, ভূটান। উত্তর-পূর্বদিকে ব্রহ্মপুত্র নদ উপত্যকা, উত্তর-পশ্চিমে দ্বারভাঙ্গা বা প্রাচীন দ্বারবঙ্গ পর্যন্ত ভাগীরথীর উত্তর সমান্তরালবর্তী সমভূমি; পূবদিকে গারো-খাসিয়া-জয়ন্তীয়া-ত্রিপুরা-চট্টগ্রাম পাহাড়ি অঞ্চল বেয়ে দক্ষিণ সমুদ্র পর্যন্ত; পশ্চিমে রাজমহল-সাঁওতাল পরগনা-ছোটনাগপুর-মানভূম-ধলভূম-কেওনঝড়-ময়ূরভঞ্জের অরণ্যময় মালভূমি; দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর। এই বর্ণময় বৈচিত্র্যময় ভূমিরূপের মধ্যেই অবস্থিত ছিল প্রাচীন বাংলার গৌড়-পুণ্ড্র-বরেন্দ্র-সুহ্ম-তাম্রলিপ্তি-সমতট-বঙ্গ-বঙ্গাল-হরিকেল নামে জনপদ। আর ছিল কাকের চোখের মতো স্বচ্ছ জলের ভাগীরথী-করতোয়া-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা-পদ্মা আরও অসংখ্য নদী। এই নদনদীর বাঁকে বাঁকেই বসত করে বাংলার ইতিহাস আর প্রাচীন বাংলার বাণিজ্যের কথন।

কৃত্তিবাস ওঝা ছোটোবেলার কথায় নিজের সম্বন্ধে বলেছেন,
"পিতা বনমালী মাতা মাণিক (মেনকা) উদরে
জনম লভিল ওঝা ছয় সহোদরে।
ছোটগঙ্গা বড় গঙ্গা বড় বলিন্দা (বরেন্দ্র) পার
যথা তথা করা বেড়ায় বিদ্যার উদ্ধার।
রাঢ়মধৈ বন্দিনু আচার্য চূড়ামণি
যার ঠাঁই কৃত্তিবাস পড়িলা আপনি।।"
এখানে কৃত্তিবাস গঙ্গার দক্ষিণ আর দক্ষিণ-পূর্ববাহিনী দুই প্রবাহকেই ছোটগঙ্গা বড়গঙ্গা বলেছেন। সুতরাং, পঞ্চদশ শতকের গোড়াতে পদ্মাই ছিল বড়গঙ্গা। কিন্তু সে যত বড়ো বা দুর্দান্তই হোক না কেন ছোটগঙ্গা বা স্নিগ্ধা জাহ্নবীর মতো শ্রদ্ধা-ভক্তি পায়নি

পঞ্চদশ শতকের গঙ্গা সংকীর্ণ হলেও, বর্তমান সময়ের মতো ক্ষীণ মোটেও ছিল না। সাগরমুখ থেকে শুরু করে এখনকার বিহার প্রদেশের চম্পা ভাগলপুর পর্যন্ত বড়ো বড়ো ব্যবসায়ী নৌকো চলত রীতিমতো। আর ভাগীরথীর তীরে তীরে, উভয় পাশেই ছিল বড়ো বড়ো বন্দর আর গঙ্গার শাখা উপনদী। চাঁদ সওদাগরের বাণিজ্যপথ তোমরা যখন বড়ো হয়ে পড়বে, দেখতে পাবে, তিনি রাজঘাট, রামেশ্বর পার হয়ে সমুদ্রের উদ্দেশ্যে যাত্রা করছেন। পথে পড়ছে অজয় নদী, উজানি, শিবা নদী (বর্তমান শিয়ালনালা), কাটোয়া, ইন্দ্রাণী নদী, নদীয়া, ফুলিয়া, গুপ্তিপাড়া, মির্জাপুর, ত্রিবেণী, সপ্তগ্রাম। এই সপ্তগ্রামে আবার গঙ্গা-যমুনা-সরস্বতী একসঙ্গে মিশেছে। তারপর একে একে কুমারহাট, ডাইনে হুগলী, বাঁয়ে ভাটপাড়া, পশ্চিমে বোরো, পূবে কাকিনাড়া, তারপর মূলাজোড়া, গাড়ুলিয়া, পশ্চিমে পাইকপাড়া, ভদ্রেশ্বর, ডাইনে চাঁপদানি, বামে ইছাপুর, বাকিবাজার, বৈদ্যবাটি, চানক, মাহেশ, খড়দহ... হয়ে ঘুষুড়ি, চিত্রপুর (চিৎপুর), কলকাতা, বেতড়, কালীঘাট, চূড়াঘাট, বারুইপুর, ছত্রভোগ, বদরিকাকুণ্ড, হাথিয়াগড়, চৌমুখী, শতমুখী এবং সবশেষে সাগরসংগম তীর্থ
তোমরা লক্ষ্য করে দেখো, সাগরে প্রবেশ করার আগে জায়গার নামগুলো কেমন বদলে গেল। চৌমুখী, শতমুখী। এখানে মনে রাখবে, নদী যখন সাগরে প্রবেশ করে তার গভীরতা কমে যায় এবং অবক্ষেপণ বেড়ে গিয়ে নদীর বুকে অজস্র ভূ-ভাগ গড়ে ওঠে। আর নদীও অনেক অনেক ভাগে বিভক্ত হয়ে চৌমুখী, শতমুখী, সহস্রমুখী নাম নিয়ে সাগরে পড়ে
তোমাদের মনে এখন প্রশ্ন জাগতেই পারে, এত নদীনালা সম্পর্কে জেনে বা তার তীরবর্তী জায়গাগুলোর নাম জেনে কী হবে? তাই প্রথমেই বলা হয়েছে, বাঙালি এককালে বর্তমান সময়ের মতো বাণিজ্যবিমুখ ছিল না। আর তখন মূল বাণিজ্যপথই ছিল নদীনালা। তাই একটু খোলসা হয়ে তাদের সম্বন্ধে জানা, এই আর কি!

*            *            *            *

তোমাদের প্রথমদিকে একবার বলেছি, রাষ্ট্র বা দেশ আসলে একটি যন্ত্র এবং তা চালাতে বিস্তর টাকাপয়সার প্রয়োজন। বাবা-মাও তোমাদের পড়াশোনা, খেলা, একটু-আধটু সাই-ফাই মুভি, ইকো পার্ক, মেরিন পার্কের পিছনে বেশ ভালো খরচাপাতি করেন, সে তোমরা ভালোই বোঝো। তাহলে ব্যাপারটা হল, তোমার বাড়ি হোক বা রাজার বাড়ি, একটা নিয়মিত আয়ের বিস্তর প্রয়োজন। তাহলেই ভাবো, অত বড়ো দেশটা, তার বিস্তর লোকজন, পণ্ডিত, সঙ্গীতশিল্পী, ছবি আঁকিয়ে, সৈন্যসামন্ত পুষতে কত টাকাপয়সা সে সময় লাগত। চাষাবাদ তো ছিলই। তবুও ব্যাবসা বাণিজ্য না হলে বিরাট আয় সম্ভব হত না এখনও দেখতে পাও তোমরা দেশের ব্যবসায়ীরাই শ্রেষ্ঠ ধনী

ব্যাবসার মূল ব্যাপার-স্যাপারগুলো খুব একটা বদলায়নি। শুধু মাধ্যম আর উপায় বদলে গেছে। তোমরা এখন নিজেরাই যথেষ্ট খরিদদারি, এমনকি বিক্রি-টিক্রিও ঘরে বসেই করতে পারো। তার জন্য বেশ কয়েকটি অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন তোমাদের ফোন, ল্যাপটপ বা ডেস্কটপে রয়েছে। কিন্তু তখন ব্যাপারটা বেশ খাটুনির ছিল। অনেকগুলো পর্যায় পার হয়ে তবে শুরু হত মূল বাণিজ্যের ব্যাপারটা
প্রথমে বণিককে জানতে হত তার চারপাশে কী কী জিনিস পাওয়া যায়। সব জায়গায় তো আর সব পাওয়া যায় না। তবে ব্যাবসা বাণিজ্য ব্যাপারটাই থাকত না। একটু পাহাড়-টাহাড়ের দিকে হলে দামী কাঠ, লেবু, আপেল, চা। সমতল হলে ধান, পাট, আম, কাঁঠাল। মালভূমি হলে তো খনিজ সম্পদের ডাঁই। এখন দেখা যাক প্রাচীন বাঙালি বেনে কী নিয়ে ব্যাবসায় যেত।

সে সময় বাঙলায় কী কী পাওয়া যেত, জানতে গেলে সে সময় লেখা কয়েকটি পুঁথিপত্র তো ঘাঁটতেই হয়। যীশু খ্রিস্টের জন্মের প্রায় তিনশ বছর আগে কৌটিল্যের লেখা "অর্থশাস্ত্র "থেকে আমরা জানতে পারি কার্পাস আর রেশম বাঙলার প্রধান শিল্পজাত দ্রব্য ছিল। সে রেশম সুদূর রোম বা মিশর পর্যন্ত যেত। তারপর ধরো, "পেরিপ্লাস অব দ্য ঈরিথ্রিয়ান সী" বলে একটি বই লেখা হয়েছিল যীশুর জন্মেরও একশো বছর আগে, (লেখকের নামটি কিছুতেই মেলে না) তাতেও বাঙলাদেশের এই রেশম আর কার্পাসের ধন্য ধন্য করা হয়েছে। এখন আবার ভূগোল বা অর্থনৈতিক ভূগোল ঘাঁটলেই দেখবে কার্পাস হল মিশরের শ্রেষ্ঠ রপ্তানীজাত দ্রব্য। তার অর্থ যদি আমরা করে নিই, এই বাঙালি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকেই প্রাচীন মিশরীয়রা কার্পাসের ব্যবহার চাষ সম্বন্ধে শিখেছিল, খুব ভুল হবে কী? সে অবশ্য গভীর গবেষণা আর তর্কের বিষয়। অত গভীরে গিয়ে আমাদের কাজ নেই
আলেকজান্ডার ভারত আক্রমণ করেন এক কালে। সে তো তোমরা জানোই। রাজা পুরু ঝিলামের তীরে কি লড়াইটাই না লড়েছিলেন। হেরে গিয়েছিলেন বটে, কিন্তু সিকন্দর শাহের বুকের পাটায় কুলোয়নি দেশের আরও ভেতরে গ্রীক সেনাদের নিয়ে আসার। তার অন্যতম কারণ ছিল মগধের নন্দরাজাদের বিরাট শক্তি। আর... আর ছিল গঙ্গারিডি সাম্রাজ্যের শক্তি। এই গঙ্গারিডি বা গঙ্গাহৃদি বা গঙ্গাঋদ্ধি কোন অঞ্চল? তার ভৌগোলিক সীমানা উত্তরে দ্বারবঙ্গ বা বর্তমান দ্বারভাঙ্গা থেকে শুরু হয়। তার মানে এই বাঙলার প্রবেশপথ। বাঙলার দ্বার বা দ্বারবঙ্গ, অপভ্রংশে দ্বারভাঙ্গা। সেই গঙ্গাঋদ্ধির রেশমই রোম, পারস, মিশর চলে যেত নৌপথে।
কাস্পিয়ান সাগরের তীরের ইস্পাহান হয়ে ইউরেশিয় যোজক। তারপর কৃষ্ণসাগর পার হয়ে তুরস্ক, ক্রীট, গ্রীস, রোম। ভূমধ্যসাগর। তোমরা জানো পৃথিবীর দীর্ঘতম নদটি ভূমধ্যসাগরেই পড়েছে। সেই নীলনদ বেয়ে বাঙলার রেশম পৌঁছত মিশর দেশের অন্দরে।

তো গেল তন্তুদ্রব্যের কথা। আর কীসের ব্যাবসা করত বাঙালি? সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যে বস্তুটি ছিল, তা হল খাদ্যশস্য। "রামচরিত" বলে বরেন্দ্র-ভূমিতে (উত্তর বাঙলায়) নানাপ্রকারের ধান হত। বাঙালি জাতি ধানের জন্য কতটা আকুল ছিল তা জানতে পারা যায় লক্ষণসেনের আনুলিয়া, তর্পণদীঘি, গোবিন্দপুর শক্তিপুর এই চারটি তাম্রশাসনে খোদিত মঙ্গলাচরণ শ্লোকে।
"বিদ্যুদ্ যত্র মণিদ্যুতিঃ ফণিপতের্বালেন্দুরিন্দ্রায়ুধং
বারি স্বর্গতরঙ্গিণী সিতশিরোমালা বলাকাবলিঃ
ধ্যানাভ্যাসমীরণোপনিহিতঃ শ্রেয়োহঙ্কুরোদ্ভৃতয়ে
ভূয়াদ বঃ ভবার্তিতাপভিদুরঃ শম্ভোঃ কপর্দ্দাম্বুদঃ।।"
এর অর্থ হল, "যার বিদ্যুৎ নাগরাজের মণির আলোর মতো, যাঁর আধখানা চাঁদ ইন্দ্রধনুকের মতো, স্বর্গের নদী যার জটা থেকে বেরিয়ে আসা জল, যার সাদা চন্দনের তিলক সাদা বকের মতো, যাঁর ধ্যান অভ্যাস মেঘ হয়ে বাতাসে চালিত হয়, এবং যা পৃথিবীর আর্তি শোনে পূর্ণ করে, মহাদেব শিবের সেই মেঘরূপই তোমাদের সব শস্যের অঙ্কুরোদ্গম করুক।"
"রঘুবংশ" কাব্যেও দেখা যায় আখগাছের ছায়ায় বসে কৃষক মেয়েরা শালিধান পাহারা দিচ্ছেন
প্রধান শস্য ধান ছাড়াও আখ, আম, মহুয়া, মাছ, বাঁশ, কাঠ, পান, সুপুরি, নারকেল, কাঁঠাল ছিল বাণিজ্যপণ্য। সে সময়ের পুণ্ড্র, তাম্রলিপ্তক, সুহ্ম বহ্মোত্তর ছিল বাংলার সমৃদ্ধ জনপদ। এই জনপদগুলি থেকে লাক্ষা, কামরূপ থেকে অগুরু, পুণ্ড্র থেকে কস্তুরিকা ভেষজ, বরেন্দ্রী থেকে লবলী বা করমচা, বিভিন্ন প্রকার কন্দমূল জোগাড় করা হত।

এবার আসি খনিজ পদার্থের কথায়।
ত্রিপুরা, পৌণ্ড্রক, রাঢ় দেশের বজ্রভূমি, সুবর্ণভূমিতে বিভিন্ন ধাতু আকর মণি পাওয়া যেত। বজ্রভূমিতে পাওয়া যেত হীরা। সম্ভবত হীরা থেকেই বজ্রভূমি নামের উৎপত্তি। আইন--আকবরিতে আবার গড়মন্দারণে হীরের খনির উপস্থিতির কথা বলে। বর্তমান বিহারের সীমান্তে কোখরা পর্যন্ত এই গড়মন্দারণ বিস্তৃত ছিল। কৌটিল্যের মতে গৌড়দেশে রূপা পাওয়া যেত যার রঙ অগুরু ফুলের মতো। "ভবিষ্যপুরাণের" ব্রহ্মখণ্ড থেকে জানা যায় রাঢ়দেশে লৌহখনি ছিল অগণিত
"ত্রিভাগজাঙ্গলং তত্র গ্রামশ্চৈবৈকভাগকঃ
স্বল্পা ভূমিরুর্বরা বহুলা চোষরা মতাঃ
রারী (ঢ়ী) খণ্ডজাঙ্গলে লৌহধাতোঃ ক্কচিৎ ক্কচিৎ
আকরো ভবিতা তত্র কলিকালে বিশেষতঃ।।

পেরিপ্লাসের লেখায় গাঙ্গেয় মুক্তোর কথা জানা যায়। মহাভারতের সভাপর্বে জানা যায় পূর্বদেশীয় অর্থাৎ বাঙলাদেশের সমুদ্রতীরবর্তী জনপদগুলির মুক্তোর কথা

প্রাকৃতিক জিনিসপত্র সম্বন্ধে একটা মোটামুটি ধারণা হল। বাঙলার শিল্পজাত দ্রব্যের কথা এবার বলি। এই বিভাগে প্রথমেই বলতে হয় বস্ত্রশিল্পের কথা।
যীশুর জন্মের অনেক আগে থেকেই বাঙলার বস্ত্রশিল্পের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়েছিল। আরব, চীন, ইতালিয় পর্যটকদের বৃত্তান্ত থেকেও জানা যায় বস্ত্রশিল্পই ছিল বাঙলার প্রধান শিল্প কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্রে পাওয়া যায় বাঙলার বস্ত্রশিল্পের নিখুঁত বর্ণনা।
বাঙলাদেশের রেশমবস্ত্র ছিল খুব নরম সাদা। পুণ্ড্রদেশের রেশম ছিল কালো আর মণির মতো, একই সঙ্গে মসৃণ। শ্রেষ্ঠ কার্পাসবস্ত্র তৈরি হত মধুরা (মাদুরাই), অপরান্ত, কলিঙ্গ, কাশী, বৎস, মহিষ এবং বঙ্গ। বঙ্গ আর পুণ্ড্রে প্রধানত চার রকমের বস্ত্র উৎপন্ন হত। দুকূল, পত্রোর্ণ, ক্ষৌম আর কার্পাসিক। "পেরিপ্লাস" গ্রন্থে এই বস্ত্র রপ্তানীর সমস্তই জানা যায়। সেটি অবশ্য গ্রীকভাষায় লেখা। স্কফসাহেবের ইংরিজি অনুবাদে বাংলাদেশের অন্যান্য রপ্তানি দ্রব্যের কথা জানতে পারা যাবে
"After these - the course turns towards the east again and sailing with the ocean to the right and shore remaining beyond to the left, the Ganges comes into view, and near it the very last land towards the east, Chryse. There is a river near it called the Ganges... on its bank is a market-town which has the same name as the river Ganges. Through the place are brought malabathrum and Gangetic spikenard and pearls and muslins of the finest sorts which are called Gangitic.''
উৎপন্ন দ্রব্যের কথা বলে শেষ করা সম্ভব নয় ক্ষুদ্র পরিসরে। একদিকে কৃষিজাত, অন্যদিকে খনিজ এবং সর্বোপরি শিল্পজাত দ্রব্যে বাঙলাদেশ পার্শ্ববর্তী অঞ্চল ছিল যথেষ্ট বৈচিত্র্যময় এবং ঋদ্ধ। চিনি, লবণ, অলঙ্কার, মাটি-কাঠ-কাঁসা-হাতির দাঁতের তৈরি জিনিস... আর বেশি বিস্তৃত করার প্রয়োজন নেই

এবার দেখা যাক সওদাগর বা বণিক সম্প্রদায় এই বিভিন্ন পণ্য কীভাবে রপ্তানী করত বিদেশে। 

*            *            *            *

নদীমাতৃক দেশে নৌ-শিল্প যে ব্যাবসার ক্ষেত্রে বেশি ব্যবহৃত হবে তাতে আর সন্দেহ কী? সামুদ্রিক বাণিজ্যের প্রধান বন্দর ছিল গঙ্গাবন্দর এবং তাম্রলিপ্ত। ফা-হিয়েন চতুর্থ শতকে যে বিবরণ লিখেছেন তাতে তাম্রলিপ্ত-র সঙ্গে সিংহলের বাণিজ্যিক সম্পর্কের প্রমাণ স্পষ্ট। তারও তিন-চারশ বছর আগে টলেমির লেখা এবং পেরিপ্লাস গ্রন্থে পাওয়া যায় গঙ্গাবন্দর এবং তাম্রলিপ্তের সঙ্গে সুদূর রোম সাম্রাজ্যের বাণিজ্যের প্রমাণ
এবার সমুদ্র বন্দরগুলিতে পৌঁছনোর জন্য নদীপথগুলি ব্যবহার করা হত। চম্পা থেকে গঙ্গা ভাগীরথীর জলপথে গঙ্গাবন্দর বা তাম্রলিপ্ত যাওয়ার পথ ব্যবহার করা হত। মহানাবিক বুদ্ধগুপ্তের নামটি বাঙালির বাণিজ্য নৌবিদ্যার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য। রক্তমৃত্তিকা অঞ্চলে তাঁর বাড়ি ছিল। তবে তাঁর গল্প আরেকদিন বলব

*            *            *            *

এবারে বিনিময়দ্রব্য। অর্থাৎ যার বদলে, অন্য দেশ থেকে নিয়ে আসা হবে প্রয়োজনীয় বস্তু।
হরিণ নেওয়া হল গ্রাম নগর ঘুরে। তার বদলে আনা হবে ঘোড়া। উজানি নগরের ধনপতি মর্কট ধরে চালান করবে সিংহল দেশে। রাম-রাবণের যুদ্ধ শেষে শুধু রক্ত পড়ে আছে, দেহ নাই। অশোকবনে কলাগাছ ভাঙে কলার ভারে। কুঁদুরির বনে কচি ফল বুড়ো হয়, বুড়ো হয়ে ঝরে পড়ে। সেখানে মর্কট পৌঁছে দিলে ফলের সৎকার হবে। মর্কটের বদলে আনা হবে হাতি। মাদার, চেঞ্চা, জিগা গাছে ফাঁদ পেতে দলে দলে হনুমান ধরে তোলা হল সওদাগরের নৌকায়। তারপর নেওয়া হল পায়রা। কতরকমের যে বকবকম পায়রা ধরা পড়ল তার ইয়ত্তা নেই। থুড়িমারা, পাকশালিকা, সেতা, নেতা, নয়নসুকা, করট, তামাট, সুলক্ষণ, সৌরজ, গোলা, মকরজ। যত তাদের নাম, তত তাদের রূপ। জোড়া পায়রার বদলে দক্ষিণ পাটন থেকে আনা হবে শুকপাখি। সে পাখি ব্যাসদেবের বড়ো প্রিয় ছিল। তাই তার নাম দেবপক্ষীও বটে। শুক পাখির সাথী সারি। শুকসারি নাকি সেকালে গান গাইতে পারত, ধনীর মেয়েকে শোনাত নানারকমের ধাঁধা। যেমন শুক বলবে,
"বেগে ধায় রথ, নাহি চলে এক পা
নাচয়ে সারথি তাহে পসারিয়া গা
হেয়ালি-প্রবন্ধে, পণ্ডিত দেহ মতি
অন্তরিক্ষে চলে রথ, ভূতলে সারথি
বলো তো কী?
সঙ্গে সঙ্গে সারি উত্তর দেবে, “ঘুড়ি, আবার কি?
আবার সারি ফেরতা প্রশ্ন করবে,
“শিরোপরি পৃথ্বী ধরি, পৃষ্ঠে প্রিয় কৈটভারি,
ভূষণ ডমরুধর, পর্বতেরে দন্ড করি,
সর্পে করি সহচরী, বৈরী সহচর।
বলো তো কে?
শুক উত্তর দিল, “অনন্তনাগ, আবার কে?

তারপর নারকেল। নারকেল যাবে দূর দ্বীপে। তার বিনিময়ে মিলবে শঙ্খ। শঙ্খধ্বনিতে হবে মাঙ্গলিক কাজ। তার শব্দে নদী-বন-তেপান্তর পার হয়ে অমঙ্গলের বাতাস চলে যাবে দূর দেশে। মায়েরা, দিদিরা, বৌদিদিরা পরবেন কতরকমের শাঁখা। কতরকমের তাদের গড়ন আর নাম। লিচুচোট, মটর, গোখরি, ধানশিষ, লতা, পলাকাটা, মকরমুখ, চাকি, ফুল, ধবলতনু, খেচুর, পায়রাচোখ, শঙ্খপদ্ম, সোনামুখী, পাঁচগাছি, সাতগাছি, ন-গাছি, রং-খিলান, সরু চোট, খেজুরছড়ি... আরও কত যেন রকমের।
নিমপাতা, হলুদ, কোলকন্দের বিনিময়ে মিলবে লঙ্কাদেশের লবঙ্গ। আদা-আম-আমলকী-হরীতকী-বহেড়ার বিনিময়ে আসবে সুপুরি। সিঁদুরের বদলে চামর। রঙিন চুড়ির বদলে নীলা। আখের বদলে দানা-কর্পূর। অলক্তকের (আলতা) বিনিময়ে আনা হবে করমচা। নল, শীতল আর উলুঘাসের পাটির বিনিময়ে কম্বল
হলুদ, নিম, কাকতুলসী, সুলপো শাক উঠল সওদাগরের ডিঙিতে। তার বদলে আসবে জিরা। মালাকার পল্লী থেকে আনা হলো আকন্দ। সেও তো বেদপুষ্পেরই জ্ঞাতি। আকন্দের বদলে আসবে উৎকৃষ্ট সিংহলি দুধে-আলতা রঙের মাকন্দ (আম) মাষকলাই, চিঁড়ে। চিঁড়ের আবার কতরকম। সাদামোটা, লালমোটা, কাঁচামোটা, নকশিমোটা, ধলামোটা। বরবটি যাবে নৌকায়। যাবে মটরকলাই, তেল, ঘি, ময়দা, খুড়িয়া শাক, সরষে, তিল, মাড়ুয়া, কলাই, ছোলা আরও আরও পণ্য
তারপর,
ভাগীরথী ছাড়ি কাণ্ডার ত্রিবেণী পড়িল
সুরলোক রজকিনীর দরশন মিলিল
আছাড় মারিয়া কাঁদুনি পুত্র মারি থোয়
সুবর্ণ পাটেতে বস্ত্র ত্বরায় কাচি লয়
একঠাঁই হৈল বস্ত্র, সাদা অতিশয়
মন্ত্র পড়িয়া ধোবী ছাবাল কাঙ্খে লয়
জয় জয় শিবশম্ভু বলে সওদাগর পণ্যসমাহার নিয়ে চলে নদীর ঘাটে। বাণিজ্যডিঙা ভরে উঠবে। তারপর অন্ধকার নদীর বাঁকে হারিয়ে যাবে বৎসর, যুগের জন্য

*            *            *            *

সংগ্রহ শেষ হলে যাত্রার প্রস্তুতি
বণিকের পল্লীতে বেজে উঠত উলুধ্বনি। তার সঙ্গে উলুধ্বনির সঙ্গত। বীণার তারে সুর তুলত কেউ। নূপুর বাজত মা কাকীর পায়ে। দুন্দুভি, মৃদঙ্গ, ভেরি বেজে উঠত। বণিকের ঘরের গৃহবধূ চলেন নৌকো পূজায়। হাতে একটি করে কলার খোলের ডিঙা। ডিঙায় একটি করে পরল (ধুঁধুল), এক জোড়া সুপুরি, এক জোড়া কলা, এক জোড়া কুল, এক জোড়া শিম, এক মুঠো বেতুয়া শাক, এক জোড়া মূলা, এক জোড়া লাউ, দুটো ক্ষীরের পুতুল, কিছু ফুল, আর দুটি ঘিয়ের প্রদীপ। আরও একশো পুরনারীর হাতে জ্বলে উঠত দুইশত প্রদীপ। নদীর ঘাটে সধবা মেয়েরা একসঙ্গে বলে উঠত, “হে মহাযান নৌকা, তোমার যাত্রা মধুময় হোক। মৌমাছির গুঞ্জন শুনো যাত্রাপথে। যতগুলি প্রাণ নিয়ে যাচ্ছ দেশান্তরে, সব ক’টি ফিরিয়ে এনো ঘরে।”
তারপর কুলপুরোহিত স্থাপন করতেন সোনার ঘট। স্বস্তিক বাচন শেষ হলে গজাননের আবাহন। তেল সিঁদুর দিয়ে আঁকা হয় গণেশের শুঁড়। নানারূপে তাঁকে বরণ করা হয়। গণপতি, মহাগণপতি, বিনায়ক, বিরিগণপতি, শক্তিগণপতি, বিদ্যগণপতি, হরিদ্রাগণপতি, উচ্ছিষ্টগণপতি, হেরম্ব, বক্রতুণ্ড, একদন্ত, মহোদর, গজানন, বিকট, বিঘ্নরাজরূপে তাঁর কাছে ভিক্ষা করা হয় মঙ্গল। গণেশের ইঁদুরটি রুষ্ট হলে সব ধান যাবে তার পেটে। তাই তার জন্যও নদীর জলে দেওয়া হতো মধু, দৈ, চিনি, চাল। ডিঙার ধ্বজ বেঁধে দেয় কিংকর কিংকরীর দল। ওড়ে স্বর্গমুখী রাঙা পতাকা। সবশেষে চন্দন আর বস্ত্র দিয়ে পূজা হয় প্রধান মাঝির। বাদ্য বাজে। এত লোকের প্রাণের ভার তার উপরে। স্বর্গের দিকে দু’হাত তুলে সে বলে, “যাত্রা শেষে যে যার গেহে ফিরুক। যদি ডিঙার ভার বেশি হয়, হে সাগরের দেবতা আমাকে নিও তুমি, বাকিদের ফিরিয়ে দিও।”
দুন্দুভি, বীণা, মৃদঙ্গ, ভেরি বেজে উঠত তারপর। বর্ণালীর মতো বাদাম উড়ত হাওয়ায়। পাটহীন, দণ্ডহীন, শকটহীন, মুদ্রাহীন, ভেটহীন, বিহারহীন, ভোগহীন, রাজহীন, ভাটহীন উইঢিবিগুললো শ্রান্তিহীন শ্রমণের মতো থাকত দিনান্তের শুভংকরী ছুঁয়ে। তাদের বিস্তৃতি নেই, কিন্তু বিস্ময় আছে প্রতি মাটিকণায়। কেয়াপাতা নেচে উঠত, ঝাউবন শিস দিত। বণিকের উন্নত কপালতটে রৌদ্রসমুদ্রের শেষ ঢেউ। কুলবধূরা বরণপাত্র নিয়ে সেতুবন্ধে সোপান বেয়ে উঠতেন। বণিক ভাগীরথীর জলে হাত পেতে, করতলের জল নিয়ে মাথায় ছোঁয়াতেন। বাদ্য থামলে তিনি নাভী পরিমাণ জলে নেমে স্রোতে দাঁড়াতেন বুক পেতে। ভাগীরথীর স্বচ্ছ জলে স্নান শেষ করে পাঁচবার তীরে ছুঁড়ে দিতেন নদীমাটি। মঙ্গলশঙ্খের শব্দে কর্ণকুহর পবিত্র করে পান করতেন নদীর জল। স্মরণ করতেন মরীচি, অত্রি, অঙ্গিরা, পুলস্ত্য, পুলহ, ক্রতু, প্রচেতা, বশিষ্ঠ, ভৃগু নারদ ঋষিগণকে। তর্পণ করতেন অগ্নিষ্মাতা পিতৃদেব, ধর্মরাজ যম, সত্যবাদী ভীষ্মের। জল অঞ্জলি দিতেন মাতামহী, প্রমাতামহী, বৃদ্ধপ্রমাতামহী, পিতৃব্য, জ্যেষ্ঠতাত, মামা, পিতৃশ্বসাদির উদ্দেশ্যে। ভাগীরথীর স্রোতে অর্পণ করতেন ধান-তিল-মুগ-যব আর মাষকলাই। নৌকার গতিতে যে সব জলজ ফুল বা উদ্ভিদ স্থানান্তরিত হবে তাদের উদ্দেশ্যে অর্পণ করতেন হরিদ্রার হলুদ, চালের সাদা, কুসুমফুলের লাল, পোড়া তুষের কালো আর বেলপাতার সবুজ রঙ। নদীগর্ভে অর্পণ করতেন গোমূত্র-গোময়-গোদুগ্ধ-গব্যদধি গব্যঘৃতাদি পঞ্চগব্য
বাণিজ্যডিঙা দুলে উঠলে গোধূলির রঙ মিশত ভাগীরথীর জলে। তমাল বনে আঁধার নামবে।
মৃৎপ্রদীপ হাতে কুলবধূরা ঘরে ফিরে যেতেন।  বেদনার কণা চোখের কোণে, নাকের লঙফুলে।  বকুল-বহেড়া-শাল-কদমের পাতা যেন ঘরের মানুষগুলির দুঃখে ঝমঝম করে চোখের জল ঝরাত।
ঋতুচক্র ঘোরে অবিরাম। শীতকাল শেষে বাসন্তী ডাকে বসন্ত আসে। বর্ণময় কাঞ্চনফুল আর দ্বীপ গেহ-গারি, চারণ-প্রান্তি সুবাসিত কেতুকি ধাতুকি চম্বক গন্ধ।
অশোক গাছের নীচে রাখাল বালক গান করে,
“অগাধ সলিলে ভাসে বিচিত্র কানন
পঞ্চম গায় অলি নাচে পিকুগণ
ক্ষণে উড়ে ক্ষণে বৈসে মত্ত মধুকর
পরাগে ধূসর লতা তরু কলেবর।”
বর্ষা আসে। ঝাঁকে ঝাঁকে কইমাছ খেজুরগাছে উঠে বসে রসের টানে। নদীর ঘাটের পাটনি গায়,
“ক্ষণে ক্ষণে হাসে রামা নাচে ভুজ তুলি
পঞ্চম গায় রাগ-রাগিণী মেলি
রবার মরুজ ডম্ফ করয়ে বাজন
অঙ্গভঙ্গে নৃত্য করে বিদ্যাধরীগণ।”
গুনগুন করে সুর তোলে ঝাউবন, বকুল গাছে পাখি ডাকে, গন্ধ ছড়ায় ফুলেরা। কোন যেন নদীর বাঁকে ফিরে আসে নৌকাগুলি। বাঙলার ঘরে ঘরে শুরু হয় উৎসব প্রস্তুতি
আর যেসব নৌকা ফেরে না, তাদের ঘরে শুরু হয় বাণিজ্যে নতুন কাউকে পাঠানোর প্রস্তুতি শিক্ষা। না ফিরলেও যেতে যে হতই, ঘাটে বাঁধা দিন গেলে মুখ দেখানো যায় না যে
_____
ছবিঃ আন্তর্জাল

No comments:

Post a Comment